বিশেষ প্রতিনিধি:ময়মনসিংহের ত্রিশালে উদ্বোধন করা হয়েছে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর শারীরিক ও ক্রীড়া প্রশিক্ষণ প্রতিষ্ঠান। মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১১টায় ত্রিশালের সামরিক প্রশিক্ষণ এলাকায় আর্মি স্কুল অব ফিজিক্যাল ট্রেনিং এন্ড স্পোর্টস (এএসপিটিএস) এর নবনির্মিত কমপ্লেক্সের উদ্বোধন করেন সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সেনা প্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ বলেন, এই শারীরিক প্রতিষ্ঠানে জুডু, কারাতসহ বিভিন্ন অস্ত্রবিহীন যুদ্ধ প্রশিক্ষণ দেয়া হবে এবং এখান থেকেই দক্ষ প্রশিক্ষক তৈরি করা হবে। এছাড়াও এই প্রতিষ্ঠানটিকে একটি আন্তর্জাতিক মানের প্রশিক্ষণ প্রতিষ্ঠান হিসেবে গড়ে তোলা হবে। প্রতিষ্ঠানটিতে সেনাবাহিনীর সদস্য ছাড়া আধাসামরিক বাহিনীর সদস্যদেরও শারীরিক বিষয়ক প্রশিক্ষণ দিয়ে দক্ষ প্রশিক্ষক তৈরি করা হবে।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের আগে সেনা প্রধান কমপ্লেক্সের সামনে একটি বৃক্ষরোপণ করেন। উদ্বোধন শেষে তিনি সেনা কর্মকর্তাদের নিয়ে মাল্টিপারপাস প্রশিক্ষণ কমপ্লেক্সে কেক কাটেন।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে আরডক এর জিওসি লেফটেন্যান্ট জেনারেল এস এম শফি উদ্দিন, সেনাবাহিনীর কোয়াটার মাস্টার জেনারেল (কিউএমজি) লে. জে. শামছুল হক, ব্রি. জে. মো. তাজূল ইসলাম ঠাকুর, ব্রি. জে. মো. মাইন উদ্দিন, ব্রি. জে. মো. ইফতেখার আনিস, ব্রি. জে. মো. ফেরদৌস হাসান সেলিমসহ ময়মনসিংহ অঞ্চলের ঊর্ধ্বতন সেনাকর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের আগে সেনা প্রধান কমপ্লেক্সের সামনে একটি বৃক্ষরোপণ করেন।

উল্লেখ্য, এএসপিটিএস সেনাবাহিনীর শারীরিক ও ক্রীড়া বিষয়ক একমাত্র প্রশিক্ষণ প্রতিষ্ঠান। সেনাবাহিনীর শারীরিক প্রশিক্ষণ ও ক্রীড়া উন্নয়নের লক্ষ্যে এই প্রতিষ্ঠানটি ১৯৭৯ সালের ২৫ মে রাজশাহী সেনানিবাসে প্রতিষ্ঠিত হয়। পরবর্তীতে ১৯৯৯ সালের ৪ ডিসেম্বর এএসপিটিএস ঢাকা সেনানিবাসে আর্মি স্টেডিয়াম সংলগ্ন এলাকায় স্থানান্তরিত হয়। এএসপিটিএস প্রতিবছর শারীরিক ও ক্রীড়া বিষয়ক বিভিন্ন প্রকার প্রশিক্ষণ কার্যক্রম পরিচালনা করে থাকে।

প্রতিষ্ঠানটিতে সশস্ত্র বাহিনীর সদস্য ছাড়াও অন্যান্য আধাসামরিক বাহিনীর সদস্যদের শারীরিক ক্রীড়া বিষয়ক প্রশিক্ষণ প্রদানের মাধ্যমে দক্ষ প্রশিক্ষক তৈরি করে থাকে। ঢাকা সেনানিবাসে শারীরিক ও ক্রীড়া বিষয়ক প্রশিক্ষণ পরিচালনার জন্য পর্যাপ্ত জায়গা এবং প্রয়োজনীয় অবকাঠামোর অপ্রতুলতার জন্য একটি অত্যাধুনিক সুযোগ সুবিধা সম্পন্ন প্রতিষ্ঠান হিসেবে গড়ে তোলার লক্ষ্যে এএসপিটিএস’কে একটি সুবিধাজনক এলাকায় স্থানান্তরের পরিকল্পনা করা হয়। এ প্রেক্ষিতে এএসপিটিএস ত্রিশাল সামরিক প্রশিক্ষণ এলাকায় স্থায়িভাবে স্থানান্তরিত হয়ে কার্যক্রম শুরু করেছে।