মেহেরপুরে কোরবানীর জন্য ১ লাখ ৮৪ হাজার গরু ছাগল প্রস্তুত

গোলাম মোস্তফা, মেহেরপুর অফিস :কোরবানীর ঈদকে সামনে রেখে গরু মোটাতাজাকরণে ব্যস্ত সময় পার করছেন মেহেরপুরের খামারীরা। কৃত্রিম উপায়ে গরু মোটাতাজাকরণে বিভিন্ন ধরনের স্টরয়েড ও হরমন জাতীয় ওষুধ ব্যবহারে ঝুঁকি থাকায় সম্পূর্ণ প্রাকৃতিক খাবার ব্যবহার করে গরু মোটাতাজা করছেন তারা। এবার কোরবানীর জন্য জেলায় ১লাখ ৮৪ হাজার গরু ছাগল প্রস্তুত করেছে খামারীরা। তবে করোনার কারনে গরু ছাগল বিক্রি নিয়ে চিন্তিত চাষী ও খামারীরা।
কোরবানীর ঈদ আসন্ন। তাই সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত ব্যস্ত কোরবানীর পশু পরিচর্যায়। এবারের কোরবানীর ঈদের জন্য জেলার ৪০০টি বাণিজ্যিক খামার সহ ২৮ হাজার পারিবারিক খামার থেকে প্রস্তুত করা হয়েছে ১ লক্ষ ৮৪ হাজার গরু ছাগল। এলাকার কোরবানীর চাহিদা ৭৮ হাজার ৮০৩টি পশু। বছর জুড়ে দেশীয় গরুর দাম বেশি থাকায় এবার গরু বিক্রি করে অধিক লাভবানের আশা করেছিল চাষীরা। কিন্তু করোনা ভাইরাসের কারনে হতাশা বিরাজ করতে খামারীদের মধ্যে। খামারীরা বলছেন গতবছর এসময় করোনার কারনে ঠিকমত গরু বিক্রি করতে পারিনি। এবারও যদি বিক্রি করতে না পারি তবে পথে বসতে হবে।


ব্যবসায়ীরা বলছেন, প্রশাসন অনলাইনে গরু বিক্রি করতে ব্যবসায়ীদের পরামর্শ দিলেও অনেকে অনলাইন বুঝেনা এবং নেটওয়ার্কেক বিভিন্ন সমস্যার সৃষ্টি হয়।
সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ মাসুদুল আলম জানান, সরকারের নির্দেশনা মতো স্বাস্থ্যবিধি মেনে খামারীরা যাতে কোরবানির পশু বিক্রি করতে পারে তার জন্য প্রশাসন আন্তরিক।

মেহেরপুর জেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা মোঃ সাইদুর রহমান জানান, স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করে খামারী ও ব্যবসায়ীরা যাতে পশু হাটগুলোতে তাদের পশু বিক্রি করতে পারে তার জন্য প্রশাসনকে সাথে নিয়ে কাজ করছে প্রাণী সম্পদ বিভাগ।