বেনাপোল বন্দর দিয়ে আসল ১৩০ মেট্রিক টন বিস্ফোরক


যশোর প্রতিনিধি: যশোরের বেনাপোল বন্দর দিয়ে ভারত থেকে ১৩০ মেট্রিক টন বিস্ফোরক আমদানী হয়েছে। দিনাজপুরের মধ্যপাড়া গ্রানাইট মাইনিং কোম্পানী লিমিটেড নামের একটি প্রতিষ্ঠান ৮টি ট্রাকে করে এসব বিস্ফোরক আমদানী করেন। আমদানী করা বিস্ফোরকের মূল্য দেড় কোটি টাকা।
গতকাল সোমবার বিকেলে বন্দর ও কাষ্টমসের আনুষ্ঠানিকতা শেষে বিস্ফোরকের চালানটি দিনাজপুরের উদ্দেশে রওয়ান হবে বলে কাষ্টমস সূত্র জানান। গত রোববার রাতে ভারতের পেট্রাপোল স্থলবন্দর দিয়ে এ বিস্ফোরক দ্রবের চালানটি বেনাপোল বন্দরের ৩১ নম্বর ট্রান্সশিপমেন্ট ইয়ার্ডে প্রবেশ করে। বিস্ফোরক দ্রবের চালানের কাগজপত্র বন্দর ও কাষ্টমসে দাখিল করেছেন এএস ইন্টারন্যাশনাল নামে এক সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট।
কাস্টমসের ডেপুটি কমিশনার মোস্তাফিজুর রহমান জানান, এএস ইন্টারন্যাশনাল নামে এক সিএন্ডএফ এজেন্ট বিস্ফোরকের চালান খালাসের জন্য প্রয়োজনীয় কাগজপত্র কাষ্টমসে দাখিল করেছে। কাষ্টমসের আনুষ্ঠানিকতা শেষে ভারতীয় ট্রাক থেকে এসব বিস্ফোরক দ্রব্য ট্রান্সশিপমেন্ট ইয়ার্ড থেকে খালাস করে বাংলাদেশী ট্রাকে নেওয়া হবে। পরে ট্রাকগুলো দিনাজপুরের উদ্দেশে বেনাপোল বন্দর থেকে ছেড়ে যাবে।
বন্দর সূত্র জানায়, ১ লাখ ৪৩ হাজার ৪৩৬ ডলার মূল্যে ১৩০ মেট্রিক টন ওজনের বিস্ফোরক দ্রব্য দিনাজপুর মধ্যপাড়া গ্রানাইট মাইনিং কোম্পানী লিমিটেড ভারত থেকে আমদানী করেছে। যার মূল্য বাংলাদেশী মুদ্রায় ১ কোটি ৫৩ লাখ ২ হাজার ৫৮২ টাকা। এদিকে এর আগে গত ১৪ মার্চ ৮ ট্রাকে ১১১ মেট্রিকটন ও গত বছরের ৩০ ডিসেম্বর ১০ ট্রাকে ১২০ মেট্রিক টন বিস্ফোরক আমদানী করেছিল একই প্রতিষ্ঠান।
বেনাপোল স্থলবন্দরের ভারপ্রাপ্ত পরিচালক (ট্রাফিক) আব্দুল জলিল জানান, দিনাজপুরের মধ্যপাড়া গ্রানাইট মাইনিং কোম্পানী লিমিটেড খননকাজ পরিচালনার জন্য ভারতের নাগপুর থেকে এই বিস্ফোরক দ্রব্য আমদানী করেছে। অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে বন্দর এলাকায় পুলিশী নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে। বন্দর থেকে দ্রুত যাতে পণ্য খালাস নিতে পারেন সেজন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।