জয়রামপুর প্রতিনিধি:ফ্রান্সে মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা.) এর ব্যাঙ্গচিত্র প্রদর্শনের প্রতিবাদে জয়রামপুর কাঠালতলাই জুমার নামাজের পর এলাকার সকল স্থান থেকে বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে এসে জয়রামপুর কাঠালতলা বাসস্ট্যান্ডে এসে একত্রিত হয় এসব মিছিল থেকে ফ্রান্সের পণ্য বর্জনসহ বিশ্ব মুসলিম উন্মাহকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানানো হয়। গতকাল শুক্রবার জুমার নামাজ শেষে জয়রামপুর কাঠালতলা বাস স্ট্যান্ড থেকে ইসলামী দলসমূহের ব্যানারে বিক্ষোভ মিছিল বের হয়। মিছিলটি বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে। জানা গেছে ফ্রান্সে মহানবী সা:-এর ব্যঙ্গচিত্র প্রকাশের প্রতিবাদে দামুড়হুদা উপজেলার জয়রামপুর কাঠালতলা এলাকাবাসী সহ ইসলামী দল সমুহ আয়োজিত প্রতিবাদ সমাবেশ ও বিক্ষোভ মিছিল করা হয় এতে অংশ নেন হাজার হাজার বিক্ষুব্ধ জনতা এ সময় বক্তারা বলেন ২০১৫ সালে ফ্রান্সের কুখ্যাত রম্য পত্রিকা শার্লি এবদো কর্তৃক বিশ্ব মানবতার মুক্তিদূত হযরত মুহাম্মদ সা:-এর ব্যঙ্গচিত্র প্রকাশের পর মুসলমানদের হৃদয়ে যে রক্তক্ষরণ সৃষ্টি হয়েছিল তার রেশ কাটতে না কাটতেই রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতায় আবার মহানবী সা:কে অবমাননায় বিশ্ব মুসলিম চরমভাবে ব্যথিত ও ক্ষুব্ধ। ফ্রান্সকে এমন জঘন্য কর্মকাণ্ড বন্ধ করতে বাধ্য করতে হবে এবং রাষ্ট্রীয়ভাবে ইসলাম ও মহানবী সা:-এর অবমাননার প্রতিবাদ করতে হবে। বিক্ষুব্ধ মুসলমানদের হৃদয়ের ক্ষত মুছতে হলে ফ্রান্সকে রাষ্ট্রীয়ভাবে ক্ষমা চাইতে হবে। তা না হলে সারা দুনিয়ার মুসলমানরা রাজপথে নেমে আসবে। এবং অবিলম্বে এই অশুভ তৎপরতা বন্ধের দাবি জানিয়েছেন জয়রামপুর হাজীপাড়া মসজিদের ইমাম আবুল কালাম আজাদ বলেন, ফ্রান্সে রাষ্ট্রীয় মদদে একটি বহুতল ভবনে মহানবী হজরত মুহাম্মদ সা:কে কটাক্ষ করে ব্যঙ্গচিত্র প্রদর্শন করা হয়েছে। এর আগে দেশটির একটি ম্যাগাজিনে একই ধরনের ঘটনা ঘটিয়ে বিশ্ব মুসলিমের আবেগ-অনুভূতিতে আঘাত দেয়া হয়েছে। ফলে পুরো মুসলিম উম্মাহই বিক্ষুব্ধ ও প্রতিবাদ মুখর হয়ে উঠেছে। তিনি এই বিক্ষুব্ধ জনতা ও ইসলামী দল সমূহের পক্ষ থেকে এই ন্যক্কারজনক ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান এবং অবিলম্বে ব্যঙ্গচিত্র প্রত্যাহার ও বিশ্ব মুসলমানদের কাছে নিঃশর্ত ক্ষমা প্রার্থনার জন্য ফ্রান্স সরকারের প্রতি আহ্বান জানান। অন্যথায় মুসলিম বিশ্ব ফ্রান্সের পণ্য বর্জনসহ দেশটির সাথে সব সম্পর্ক ছিন্ন করবে। সমাবেশ শেষে একটি বিক্ষোভ মিছিল জয়রামপুর কাঠালতলা থেকে মহাসড়ক ধরে জয়রামপুর স্কুল বটতলা পর্যন্ত গিয়ে শেষ হয়। সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন দামুড়হুদা উপজেলা সাবেক চেয়ারম্যান মাওলানা আজিজুর রহমান, জয়রামপুর ডিএস দাখিল মাদ্রাসার প্রধান শিক্ষক মাওলানা শহিদুল ইসলাম, জয়রামপুর হাজীপাড়া মসজিদের ইমাম মাওলানা আবুল কালাম আজাদ, কাঁঠাল তলা জামে মসজিদের ইমাম হাফেজ শফিউর রহমান, ডুগডুগি জামে মসজিদের ইমাম মাওলানা সামিউল ইসলাম, তারিনীপুর জামে মসজিদের ইমাম মাওলানা শামীম হোসেন, জয়রাম পুর নতুন পাড়া জামে মসজিদের ইমাম হাফেজ জিল্লুর রহমান, কলোনী পাড়া জামে মসজিদের ইমাম মাওলানা হানজালা, জয়রাম পুর মাদ্রাসা মসজিদের ইমাম হাফেজ মনিরুল ইসলাম, কুমারীদহ জামে মসজিদের ইমাম মাওলানা সরোয়ার, জয়রামপুর স্কুল বটতলা জামে মসজিদের ইমাম হাফেজ সোলেমান, চায়ের দোকান জামে মসজিদের ইমাম ডক্টর শহিদুল ইসলাম, বড় দুধ পাতিলা জামে মসজিদের ইমাম হাফেজ হারুন-অর-রশিদ, দামুড়হুদা উপজেলা যুবলীগ নেতা আব্দুল মালেক ভূঁইয়া, হাওলী ইউনিয়ন ছাত্রলীগের যুগ্ন আহবায়ক রায়হানুল ইসলাম রায়হান, হাওলী ইউনিয়ন যুবলীগের আহবায়ক জহুরুল ইসলাম ফকির, হাওলী ইউনিয়নের ইউপি সদস্য জাহাঙ্গীর আলম টিক্কা, কামরুল ইসলাম মিফতা, আব্দুল আলীম মাস্টার, খালেক ভূঁইয়া, আব্দুল আজিজ, আব্দুল আলীম ফকির, দামুড়হুদা মডেল থানা পুলিশ সদস্যরা সহ বিভিন্ন অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীসহ বিক্ষুব্ধ জনতা, এ সময় বক্তারা ফ্রান্সের সকল প্রকার পণ্য বর্জনের আহ্বান জানিয়ে বলেন, যার যতটুকু সামর্থ্য আছে তাকে ততটুকু নিয়ে নবীর ইজ্জত রক্ষায় এগিয়ে আসতে হবে। তিনি এ পর্যন্ত এই ন্যক্কারজনক ঘটনার সরকারিভাবে নিন্দা না জানানোর জন্য বাংলাদেশ সরকারের কড়া সমালোচনা করে বলেন, অবিলম্বে ফ্রান্সের রাষ্ট্রদূতকে তলব করে এর প্রতিবাদ জানাতে হবে।