স্টাফ রিপোর্টার : ভিক্ষা পেশা থেকে স্বইচ্ছায় ফিরে এসে প্রয়োজনে ক্ষুদ্র ব্যবসা করে জীবিকা র্নিবাহের জন্য সহযোগিতা চেয়ে সমাজের বিত্তবানদের কাছে সহযোগিতা চাওয়া চুয়াডাঙ্গা জেলার তিতুদহ ইউনিয়নের বড়শলুয়া গ্রামের জিয়াউর রহমানের পাশে দাড়ালে চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রশাসক । মুদি দোকান করার জন্য নগদ অর্থ সহায়তা প্রদান করেন। সেই সাথে জিয়াকে দূযোর্গ সহনশীল বাড়ী নির্মান করে দেয়ার প্রতিশ্রুতি দেন জেলা প্রশাসক নজরুল ইসলাম সরকার।
জানা গেছে, গত ২৭ শে অক্টোবর চুয়াডাঙ্গা সদরের হিজলগাড়ির সাংবাদিক আরিফ হাসানের ফেসবুক পেজে চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার তিতুদহ ইউনিয়নের বড়শলুয়া গ্রামের আংশিক দৃষ্টি প্রতিবন্ধী ভিক্ষুক জিয়া ভিক্ষা পেশা ছেড়ে দিয়ে ক্ষুদ্র ব্যবসা করে জীবিকা নির্বাহের জন্য সমাজের বিত্তবানদের কাছে অনুরোধ জানিয়ে একটি ভিডিও পোস্ট করেন। সেই ভিডিও পোস্টটি নজরে পড়ে চুয়াডাঙ্গা আঞ্চলিক ভাষা পরিষদের পরিচালক শামীম হোসেন মিজির। এ সময় সাংবাদিক আরিফের সাথে যোগাযোগ করে ভিক্ষুক জিয়াকে ক্ষুদ্র ব্যবসায় সহযোগিতা করার জন্য সহযোগিতা করতে চাইলে ৩০ অক্টোবর শামীম হোসেন মিজি ক্ষুদ্র ব্যবসা করার জন্য প্রয়োজনী সকল উপকরণ কিনে তার সহযোগী হিজলগাড়ীর সামসুলকে সাথে নিয়ে হিজলগাড়ী বাজারে জিয়াকে ডেকে নিয়ে তার কাছে তা হস্তান্তর করেন। একই সময় সেখানে উপস্থিত হয়ে জিয়াকে সহযোগিতা করেন ভালবাসার বন্ধন দর্শনার সভাপতি সাইফুল ইসলাম পল্টু। সাংবাদিক আরিফ হাসান সেই ছবি আবারো ফেসবুকে পোস্ট দেয়। পোস্ট দেয়ার সাথে সাথে নজরে পড়ে চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রশাসক নজরুল ইসলাম সরকারের। জেলা প্রশাসক নজরুল ইসলাম জিয়াকে তার কাছে নিয়ে যাওয়ার জন্য সাংবাদিক আরিফকে বলেন। গতকাল রোববার দুপুর ১২টার দিকে ভিক্ষুক জিয়াকে সাথে নিয়ে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে গেলে জেলা প্রশাসক ভিক্ষুক জিয়ার সার্বিক বিষয়ে খোজখরব নিয়ে তাকে স্থায়ীভাবে ব্যবসা করার জন্য নগদ ১৫ হাজার টাকা সহায়তা প্রদান করেন। সেই সাথে তার থাকার ব্যবস্থা করার জন্য দ্রুত একটি সরকারী ঘর প্রদানের প্রতিশ্রুতি প্রদান করেন। জেলা প্রশাসকের এমন উদ্যোগ মুহুর্তেই ভাইরাল হয় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। সেখানে সবাই জেলা প্রশাসকের ভূয়শী প্রশংসা করেন।