ষ্টাফ রিপোর্টার: চুয়াডাঙ্গা রেল বাজার এলাকায় পূর্ব শত্রুতার জেরে নিপুন শাহা নামের এক ট্রাক ড্রাইভারকে মারধর করাসহ মোটরসাইকেল ভাংচুর করেছে ক’একজন যুবক। গতকাল বৃহস্পতিবার বেলা ৪ টার দিকে চুয়াডাঙ্গা রেল ষ্টেশন সংলগ্ন বটতলায় এ ঘটনা ঘটে। আহত নিপুন সাহা (২০) চুয়াডাঙ্গা পৌর এলাকার পুজাতলা পাড়ার কৃঞ্চপদ সাহার ছেলে। স্থানীয়রা আহত অবস্থায় নিপুনকে হাসপাতালে নিলে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে তাকে ভর্তি রাখা হয়েছে।
এ ঘটনায় নিপুন শাহার পিতা কৃঞ্চপদ শাহা ও সিরাজুল ইসলাম আসমান বাদী হয়ে চুয়াডাঙ্গা সদর থানায় পাল্টা পাল্টি অভিযোগ দায়ের করেছেন। এ ঘটনায় কদম আলী নামে এক যুবককে আটক করেছে পুলিশ। আটক কদম আলী(২২) চুয়াডাঙ্গা পৌর এলাকার আরামপাড়ার আজাদ মিয়ার ছেলে ও চুয়াডাঙ্গার ঠিকাদার ব্যবসায়ী সিরাজুল ইসলাম আসমানের কর্মচারী।
আহত নিপুনের পিতা অভিযোগ করে বলেন, গতকাল বিকেলে তিনি তার ছেলে নিপুনকে ফার্ম পাড়ায় তার খালার বাড়ীতে টাকা আনতে পাঠান। এক ঘন্টা পর তিনি খবর পান তার ছেলে নিপুনশাহা হাসপাতালে ভর্তি। পরে তিনি হাসপাতালে গিয়ে তার ছেলের কাছে থেকে জানতে পারেন রেলপাড়া এলাকার কাবা, নান্টু, কদমসহ আরো ক’একজন তাকে দাঁয়ের উল্টো পিঠ দিয়ে মারধোর করাসহ তার ব্যাবহৃত মোটরসাইকেল ভাংচুর করে। আহতাবস্থায় স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে সদর হাসপাতালে ভার্তি করেন।
এ ঘটনায় তিনি কাবা, নান্টু, ও কদমের নাম উল্লেখ করাসহ আরো ক’একজনকে অজ্ঞাতনামা আসামী করে চুয়াডাঙ্গা সদর থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। মারামারির খবর পেয়ে সদর থানা পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) হাসানুজ্জামানসহ সঙ্গীয় ফোর্সসহ বিকেলে রেল বাজার এলাকায় অভিযান চালিয়ে কদম আলী নামে একজনকে আটক করে থানা হেফাজতে নেয়।
এ দিকে, এ ঘটনায় রেল বাজারের ঠিকাদার ব্যবসায়ী সিরাজুল ইসলাম আসমান বাদী হয়ে জ্বীনতলা পাড়ার নিপুন চন্দ্র ও শেখপাড়ার রিমন নামে দু’জনের নামে পাল্টা একটি অভিযোগ দায়ের করেন। আসমান কনেস্ট্রাকশনের সত্তাধিকারী যুবলীগ নেতা সিরাজুল ইসলাম আসমান অভিযোগ করেন গতকাল বেলা ৪ টার দিকে চুয়াডাঙ্গার চিহ্নিত মাদক সেবনকারী নিপুন শাহা ও রিমন নেশাগ্রস্থ অবস্থায় রেল বাজারে তার ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানে প্রবেশ করে এবং আমার কর্মচারী কদম আলীর কাছে চাঁদা দাবী করে, চাঁদা দিতে অস্বীকার করলে শ্রী নিপুন ও ইমন কদমকে এলোপাতাড়ি মারধর করে। এই অবস্থায় স্থানীয় জনগন চাঁদাবাজদের ধরে মারপিট করে। আমি শোনার পর অফিসে উপস্থিত হয়ে নিপুন ও ইমনকে জনগনের কাছ থেকে উদ্ধার করে ছেড়ে দিই। আমার ঠিকাদারী ব্যাবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা ও চাঁদাবাজীর জন্য চুয়াডাঙ্গা সদর থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করি।
এ বিষয়ে চুয়াডাঙ্গা সদর থানার অফিসার ইনচার্জ আবু জিহাদ খান জানান, রেল বাজারে মারামারির ঘটনায় দুটি লিখিত অভিযোগ দায়ের হয়েছে এবং এ ঘটনায় কদম আলী নামে একজনকে আটক করেছে চুয়াডাঙ্গা সদর থানা পুলিশ। দুটি অভিযোগই ক্ষতিয়ে দেখা হচ্ছে। এ ঘটনায় প্রকৃত অপরাধীদের বিরুদ্ধে যথাযথ আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।