1. পাকিস্তানে তালেবান-আইএসের প্রভাব বাড়ছে

পশ্চিমাঞ্চল অনলাইন মনিটর:মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের প্রস্তাবের প্রেক্ষিতে মস্কোতে তালেবানদের সঙ্গে শান্তি আলোচনায় বসেছে আফগান সরকার। এর মাঝেই সাম্প্রতিক মাসগুলোতে পাকিস্তানে নিরাপত্তা পরিস্থিতি আরো অবনতির দিকে যাচ্ছে। জেঞ্জার নিউজের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

বিশেষ করে আফগানিস্তানের সীমান্তবর্তী বেলুচিস্তান ও খাইবার পাখতুন প্রদেশে জঙ্গিগোষ্ঠী তেহরিক-ই তালেবান পাকিস্তান (টিটিপি) ও আইএসের প্রভাব বাড়ছে। সেখানে স্থানীয়দের গান বাজানো বন্ধ করা এবং নারীদের বাড়ির বাইরে বের হওয়ার ওপর নিষেধাজ্ঞা জারিসহ নানান ধরনের হুমকি দেয়া হচ্ছে। এসবের পেছনে নেতৃত্ব দিচ্ছেন টিটিপি প্রধান নূর ওয়ালি মেহসুদ।

এই ব্যক্তিকে ২০২০ সালে জাতিসংঘের কালো তালিকাভুক্ত করা হয়েছে। তিনি স্থানীয় সরকারি কর্মকর্তা ও সাংবাদিকদেরও ক্রমাগত হুমকির মধ্যে রাখেন।

২০১৪ সালে উত্তর ওয়াজিরিস্তানে এক সামরিক অভিযানের পর থেকে পুনরায় প্রকাশ্যে আসতে শুরু করে পাকিস্তান তালেবান। পরবর্তী বছর ২০১৫ সালে অঞ্চলটিতে নিজেদের উপস্থিতির কথা জানান দেয় জঙ্গিগোষ্ঠী আইএস। ২০১৯ সালের মে মাসে ভারত ও পাকিস্তানে নিজেদের নতুন শাখা ঘোষণা করে তারা। এর পরের মাসেই টিটিপি পুনরায় নিশ্চিত করে যে, তারা ওয়াজিরিস্তানে নিজেদেরকে আবার সংঘঠিত করছে।

অঞ্চলটিতে সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড বাড়িয়েছে টিটিপি। গত ২১ ফেব্রুয়ারি উত্তর ওয়াজিরিস্তানে একদিনেই ৬ জনকে অপহৃত করা হয়েছে। তার আগের দিন মীর আলি শহরে চার নারী সমাজকর্মীকে গুলি করে হত্যা করা হয়। গত দুই-তিন মাস ধরেই অঞ্চলটিতে এমন হত্যাকাণ্ড বাড়ছে। এ তথ্য জানিয়েছেন স্থানীয় মানবাধিকার কর্মী ও রাজনীতিবীদ আবদুল্লাহ নাঙ্গিয়াল।