স্টাফ রিপোর্টার: নিজের পছন্দমতো মোবাইল ফোন কিনে না দেয়ায় লাবিব হোসেন আপন নামের এক স্কুলছাত্র কীটনাশক খেয়ে আত্মহত্যা করেছে। গতকাল রোববার সকালে উন্নত চিকিৎসার জন্য চুয়াডাঙ্গা থেকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পথে তার মৃত্যু হয়। লাবিব হোসেন আপন (১৬) চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার গড়াইটুপি ইউনিয়নের খেজুরতলা গ্রামের সালাউদ্দিন হোসেন উল্লাসের ছেলে ও এলাকার খাড়াগোদা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেণির ছাত্র।
পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, লাবিব হোসেন আপন তার স্কুলের অনলাইন ক্লাসের জন্য মোবাইল কেনার কথা বলেন তার বাড়ীতে।দুইভাই স্থানীয় খাড়াগোদা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণীতে পড়ে।এজন্য তার পিতা গত বৃহস্পতিবার  একটি মোবাইল কিনে দেন এবং আপাতত দুভাইয়ের কাজ চালিয়ে নিতে বলেন।কিন্তু ওই মোবাইল আপনের পছন্দ না হওয়ায় বৃহস্পতিবার  ওই মোবাইল নিয়ে  মনমালিন্য হলে রাতে দানাদার কীটনাশক খায় আপন। পরে বাড়ির লোকজন টের পেলে তাকে দ্রুত চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করে। রাতেই ওয়াশ করা হয়। রোববার ভোরে অবস্থার অবনতি হলে সদর হাসপাতালে কর্তব্যরত চিকিৎসক আপনকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার করে। রাজশাহী নেয়ার পথে তার মৃত্যু হয়।

এ বিষয়ে আপনের বাবা সালাউদ্দিন হোসেন  উল্লাস বলেন, বর্তমান প্রেক্ষাপটে মোবাইল গেমসে কিশোররা আসক্ত হচ্ছে।পড়াশোনা বাদ দিয়ে মোবাইল নিয়ে নানা রকম গেমস খেলা থেকে বিরত রাখতে চাইছিলাম। যার কারনে স্কুলের অনলাইন ক্লাসের জন্য দুই ভাইয়ের জন্য একটি মোবাইল কিনে দিই। কারন দু’ভাই একই ক্লাসে পড়ে। ঘটনার দিন মোবাইল নিয়ে মনমালিন্য হয় এবং ঘরে থাকা কীটনাশক খায় ।

এ বিষয়ে দর্শনা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি)মাহাব্বুর রহমান কাজল বলেন,মোবাইল কেনা নিয়ে পিতার উপর অভিমান করে আত্মহত্যা করেছে স্কুলছাত্র আপন । বিষয়টি তদন্তপূর্বক আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।