স্পোর্টস রিপোর্টার:করোনা মহামারির কারণে বেশ কিছুদিন ছুটিতে ছিলেন জাতীয় ক্রিকেট দলের বিদেশি কোচরা। শ্রীলঙ্কা সফর সামনে রেখে সেপ্টেম্বরের মাঝামাঝি সময়ে ঢাকা আসেন ড্যানিয়েল ভেট্টোরি ছাড়া বাকি সব কোচিং স্টাফ। শ্রীলঙ্কা সফর ভেস্তে গেলে রাসেল ডমিঙ্গো-ওটিস গিবসনরা ব্যস্ত হয়ে পড়েন বিসিবি প্রেসিডেন্টস কাপ নিয়ে। কাল প্রেসিডেন্টস কাপের ফাইনাল। তবে তিন বিদেশি কোচ থাকবেন না মাঠে। শুক্রবার রাতেই নিজ নিজ দেশে ফিরে গেছেন ডমিঙ্গো, গিবসন ও রায়ান কুক। টুর্নামেন্ট শেষে ছুটিতে যাবেন বিদেশি আরো কয়েকজন কোচিং স্টাফ।

আবার কবে নাগাদ ফিরবেন জাতীয় দলের বিদেশি কোচরা? নভেম্বরের শেষ দিকে পাঁচ দলের একটি টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্ট আয়োজন করবে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। টুর্নামেন্ট শুরুর সপ্তাহ খানেক আগে অনুশীলনে নামবে দলগুলো।

বিসিবি সূত্রে জানা গেছে, বিদেশি কোচদের অধীনেই শুরু হবে তাদের এই অনুশীলন। তবে কোনো কারণে টুর্নামেন্ট পিছিয়ে গেলে কিংবা বাতিল হলে বিদেশি কোচদের ফিরতে আরো বিলম্ব হবে।

বিসিবি প্রেসিডেন্টস কাপে ফাইনালে ওঠা মাহমুদুল্লাহ একাদশের প্রধান কোচ ছিলেন জাতীয় দলের বোলিং কোচ ওটিস গিবসন। ফাইনালে উঠতে ব্যর্থ তামিম ইকবাল একাদশের প্রধান কোচের দায়িত্ব পালন করেন ফিল্ডিং কোচ রায়ান কুক। আর জাতীয় দলের প্রধান কোচ রাসেল ডমিঙ্গো ছিলেন পুরো টুর্নামেন্ট দেখভালের দায়িত্বে।

প্রেসিডেন্টস কাপ শেষে কিছুদিনের জন্য বিশ্রামে যাবে ক্রিকেটাররাও। বন্ধ থাকবে দলীয় অনুশীলন। জৈব-সুরক্ষা বলয়ে থাকা মুশফিক-তামিমরা নিজ নিজ পরিবারের কাছে ফিরে যাবেন। তবে চাইলে এই সময়ে একক অনুশীলন করতে পারেন তারা। বিসিবি সে ব্যবস্থা রেখেছে। বোর্ড জানিয়েছে, কোনো ক্রিকেটার অনুশীলন চালিয়ে যেতে চাইলে তাকে সব ধরনের সুযোগ-সুবিধাই দেয়া হবে।