স্টাফ রিপোর্টারঃ দামুড়হুদা মডেল  থানা থেকে মাত্র   ১ কিঃ মিঃ  দুরে মাদকের ভয়াবহ বিস্তার। যুব সমাজের  চরম অবক্ষয়।  এলাকার  চিহ্নিত  মাদক গাঁজা   ব্যবসায়ী লাল্টু’র  দৌরাত্ম্যের শেষ  কোথায়?
 একাধিক  অভিযোগ ও তথ্য  সূত্রে  জানা  গেছে,  , দামুড়হুদা উপজেলা সদরের দশমী পাড়ার মৃত.  হাজারা মন্ডলের ছেলে  চিহ্নিত মাদক গাঁজা ব্যাবসায়ী মাদক সম্রাট শফিকুল  ইসলাম  ওরফে লাল্টু (৫০) হাজরা  মন্ডলের  পুকুর  সংলগ্ন  তার নিজ  চায়ের দোকানে   কৌশলে এলাকার  উঠতি বয়সের  যুব সমাজ  সহ বিভিন্ন  মহলের  মাঝে  গাঁজা  বিক্রয়   করছেন  দীর্ঘদিন ধরে ।   দামুড়হুদা সদরের দশমী  পাড়ায় নিজ বাড়ির  সাথে  লোক দেখানো  চায়ের দোকানের আড়ালে  চালিয়ে  যাচ্ছে  লাল্টু  তার মাদকদ্রব্য গাঁজার খুচরা বিক্রয়।মাদক ব্যাবসায়ী লাল্টুর কাছে দামুড়হুদা  যুব ছাত্র সহ আশপাশের  গ্রামের মাদকাসক্তরা গাঁজা  নিতে আসেন বলে আমাদের এ প্রতিনিধিকে নিশ্চিত করছেন বেশ কিছু  মহল।
  চিহ্নিত  মাদক ব্যবসায়ী লাল্টুর মাদকের দৌরাত্ম্যে  বন্ধ  করে  দ্রুত আইনের  আওতায়  আনার  দাবি  জানিয়েছেন এলাকার  সচেতন মহল।  নাম প্রকাশ  না করার শর্তে  বেশ ক ‘ একজন সচেতন  মহল  জানান – দামুড়হুদা উপজেলার সদরে থানা থেকে   মাত্র ১কিঃ মিঃ  দূরে লাল্টু তার  মাদকদ্রব্যের ব্যাবসা চালিয়ে  যাচ্ছে  কি  ভাবে?  সারাদিনই তার কাছে গাঁজা নিতে  আসতে থাকে  দামুড়হুদা সহ আশপাশ গ্রামের মাদকাসক্তরা তবে একটু সন্ধা হলেই শুরু  মাদকাসক্তদের আনাগোনা। চুয়াডাঙ্গার মানবিক  পুলিশ  সুপার  জাহিদুল  ইসলাম  ও দামুড়হুদা মডেল থানার  অফিসার  ইনচার্জ  আঃ খালেকের নিকট চিহ্নিত এ মাদক ব্যবসায়ীর দ্রুত আইনের  আওতায়  আনার  দাবি  জানিয়েছেন  এলাকা বাসীর সচেতন ও ভূক্তভোগী মহল । 
উল্লেখ  গত মাসে এ মাদক ব্যবসায়ীকে দামুড়হুদা মডেল  থানা পুলিশ  মাদকদ্রব্য গাঁজা  সহ তার  নিজ বাড়ি হতে আটক করেন।আটকের পর মাদকদ্রব্য  আইনে মামলা  রুজূ করে  তাকে আদালতে  প্রেরণ করেন। আদালত  থেকে জামিন পেয়ে  কিছুদিন আগে  বাড়ি এসে চিহ্নিত  এ মাদক  ব্যবসায়ী পূর্বের মরনব্যাধী মাদকের  পেশায়  ফিরে  সমাজের তরুণ প্রজন্মের ধ্বংসের  দিকে  এগিয়ে  দিচ্ছেন । মাদক ব্যবসায়ী লাল্টুর নামে মাদকদ্রব্য আইনের বেশ ক’ একটি মামলা রয়েছে  বলে জানা  যায় ।