দামুড়হুদায় সরকারি নিয়ম-নীতি ও স্বাস্থ্য বিধি না মেনে প্রতিবন্ধী বাছাইকরণ প্রক্রিয়া

দামুড়হুদা প্রতিনিধি:দামুড়হুদা  উপজেলায় সরকারি নিয়ম -নীতি ও ম্বাস্হ্য বিধি না মেনে প্রতিবন্ধী  বাছায়করণ প্রক্রিয়া চলছে।

জানাযায়, দামুড়হুদা উপজেলা সমাজ সেবা অধিদপ্তরের কার্যালয়ে শনিবার ও রোববার   এ কার্যক্রম  চলাকালীন সময়ে দেখাগেছে, স্বাস্থ্যবিধি না মেনে  শারীরিক দূরুত্ব বজায় না রেখে  প্রতিবন্ধীদের অফিসের মধ্যেই লাইনে দাঁড় করানো হয়েছে। এ বিষয়ে দামুড়হুদা উপজেলা সমাজসেবা অফিসারের কাছে জানতে চাওয়া হলে তিনি  রাগান্বিত হয়ে উচ্চস্বরে বলেন, কে বলেছে স্বাস্থ্যবিধি মানা হচ্ছেনা, যেখানে চাল দেচ্ছে সেখানে স্বাস্থ্যবিধি নেই, এখানে কিসের স্বাস্থ্যবিধি।”
এদিকে স্বাস্থ্যবিধি মানা হচ্ছেনা এমন খবর জানতে পেরে উপজেলা নির্বাহি অফিসারের তরিৎ পদক্ষেপ নেয়াকে সাধুবাদ জানিয়েছে অনেকে। তিনি তাৎক্ষণিকভাবে সহকারী কমিশনার( ভূমি) মোঃমহিউদ্দিনকে ঘটনাস্থলে পাঠান।

অন্যদিকে, প্রতিবন্ধী বাছায়করণের জন্য প্রতিবন্ধী, প্রতিবন্ধীর ধরণ সনাক্তকরণসহ ইত্যাদী কার্যক্রমের প্রয়োজন  হয়। নিয়মানুযায়ী   উপজেলা স্বাস্থ্য  কমপ্লেলেক্সে   বিনামূল্যে কাজটি করার কথা থাকলেও  উপজেলা সমাজ সেবা অফিসার  সংশিলিষ্ট মেডিক্যাল অফিসারের যোগসাজশে নিয়ম-নীতির প্রতি বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে অার্থিকভাবে লাভবানের জন্য প্রতিবন্ধীদের হাতে একটা চিরকুট ধরিয়ে দেয়া হয় যেখানে লেখা আাছে “নিউ ডিজিটাল (প্রা:) হাসপাতাল  এন্ড শোভা ডায়াগোনেস্টিক সেন্টার, চিৎলা হাসপাতাল মোড়, দামুড়হুদা,চুয়াডাংগা। ”  এ বিষয়ে খোঁজ নিয়ে জানাযায়, সেখানে জনপ্রতি ৮০ থেকে ১০০টাকা  রক্ত টেষ্ট বাবদ নেয়া হচ্ছে।  উপজেলা সমাজসেবা অফিসারের কাছে এ বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ”  বিদ্যুৎ না থাকলে বিকল্প  ব্যবস্হায় পরীক্ষা করার জন্য শোভা ডায়াগোনেস্টিকের চিরকুট দেয়া হয়েছে, অন্য  জায়গা থেকেও সে টেষ্ট করতে পারবে।  এধরনের বিকল্প ব্যাবস্থা অন্য কোথাও নেই।” ডায়াগোনেস্টিক সেন্টারের পরিচালক আব্দুল খালেক বলেন,” আমার এখান থেকে তিনদিনে ১৫০ জনকে পরীক্ষা করা হয়েছে,কিছু ফ্রিও করিয়ছি।” এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে মুঠোফোনে জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন, কোন প্রতিবন্ধীকে এ বিষয়ে বাধ্য করা যাবেনা, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী যেখানে তাদের জন্য বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা দেয়ার ব্যবস্থা করেছেন সেথানে তাদের কাছ থেকে কোন টাকাও নেয়া যাবেনা, কোন বিষয়ে বাধ্যও করা যাবেনা।”