দর্শনা কেরুজ চিনিকলের ২০২০-২১ আখ মাড়াই কার্যক্রম সমাপ্তি : আখেরী হুইসেল বাজিয়ে বন্ধ হলো কেইন কেরিয়ারের চাকা

দর্শনা অফিস: কােন ধরনের যান্ত্রিক ত্রুটি ও বড় ধরনের ব্রেকডাউন ছাড়ায় এবার কেরুজ চিনিকলের ২০২০-২১ মাড়াই মরসুমের কার্যক্রম সমাপ্তি ঘটেছে। গতকাল সকাল সাড়ে ৬টার দিকে চিনিকল বন্ধে বাঁজানো হয় আখেরী হুইছেলের ভেপু। আর এ হুইছেল বাঁজানোর মধ্য দিয়ে কেরুজ কেইন কেরিয়ারে (ডুঙ্গা) চাকা বন্ধ হয়। তবে এখনও চিনি উৎপাদন কার্যক্রম চলবে ২/৩ দিন। তবে এবার প্রতিষ্ঠানকে বড় ধরনের লােকসান কামাতে ব্যবস্থাপনা পরিচালক আবু সাঈদ এর দিক নির্দেশনায় প্রতিষ্ঠানের অন্য সকল বিভাগের কর্মকর্তাদের নিরলস পরিশ্রমে সুষ্ট ভাবে সম্পন্ন করা হয়েছে মাড়াই মরসুম। এ মাড়াই মরসুম লােকসানের মাত্রা কমে আসার সম্ভাবনাও রয়েছ বলে একটি সুত্র জানায়। ২০২০-২১ মাড়াই মরসুম কেরুজ চিনিকল কর্তৃপক্ষ ১ লাখ ৫৪ হাজার মেট্রিকটন আখ মাড়াই করে ৯ হাজার ৬২৫ মেট্রিকটন চিনি উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারন করা হয়। চিনিকলর নিজস্ব ১ হাজার ৫শ ৫০ একর জমিত ২৪ হাজার মট্রিক টন আখ এবং কৃষকের ৬ হাজার ৯শ ৮২ একর জমির ৯৪ হাজার মট্রিকটন আখ ছিলা। এছাড়া কুষ্টিয়ার জগতি চিনিকলর আওতাধীন কৃষকদের ৩৬ হাজার মেট্রিকটন আখ কেরুজ চিনিকল মাড়াই করার সিদ্ধান্ত গ্রহন করেছিলাে প্রতিষ্ঠানটির কর্তৃপক্ষ। ফলে এবারের মাড়াই কার্যদিবস নির্ধারণ করা হয় ১০৪ দিন। চিনি আহরণের গড় হার নির্ধারণ করা হয়েছিলাে ৬ দশশিক ২৫ শতাংশ। তবে এখনাে চিনি তৈরির কার্যক্রম চলমান থাকায় সঠিক তথ্য জানা যায়নি। যেহেতু এবার মাড়াই মরসুমে চিনিকল যান্ত্রিক ত্রুটি মুক্তর মধ্য দিয়ে সমাপ্তি হয়েছে। সে অনুযায়ী লোকসানের পরিবর্তে লাভের মুখ দেখার সম্ভাবনা জাগতে পারে বলে চিনিকলের সাধারন শ্রমিক-কর্মচারীরা এমনটা মনে করছেন।#