জীবননগর অফিসঃচুয়াডাঙ্গার জীবননগরে রাস্তার কারণে চলাচলে ভোগান্তি পোয়াচ্ছে শতাধিক পরিবার। উথলী থেকে দর্শনা সড়কের পাশে মালো পাড়ায় বসবাসকারী মানুষের চলাচলের একমাত্র রাস্তাটি আজো নির্মান হয়নি। সামান্য বৃষ্টি হলে পানি আর কাঁদায় চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়ে।
আঞ্চলিক সড়ক থেকে কাঁচা রাস্তাটি নিচু হওয়ায় বৃষ্টিতে চারিদিকের পানি জমে খালে পরিনত হয়। বাড়ি থেকে বের হলেই রাস্তার ওপর হাটু পানি। মাত্র দেড়শো ফুট দীর্ঘ কাঁচা রাস্তাটি চলাচলের উপযোগী করতে ওই এলাকার বাসিন্দারা স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের কাছে ধর্ণা দিয়ে প্রতিকার পাননি ।
স্থানীয়রা জানান, উথলী মালোপাড়া গ্রামটিতে দেড় শতাধিক পরিবার বসবাস করছেন। আঞ্চলিক সড়কের পাশে গ্রামটিতে চলাচলের জন্য কাঁচা রাস্তাটি অনেক নিচু। বৃষ্টি হলেই চারিদিকের পানি এসে জমা হয় রাস্তায়। নিষ্কাশনের ব্যবস্থা না থাকায় ভারী বৃষ্টিতে কোমর পর্যন্ত পানি জমে। এসময় বড়ির বাইরে বের হতে পারে না শিশু সহ নারী-পুরুষ। নিম্নবিত্ত পরিবারের বসবাস হওয়ায় তাঁদের কোন জনপ্রতিনিধি খোঁজ খবর রাখেন না।
ওই গ্রামের বাসিন্দা ও ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আলমগীর হোসেন জানান, গ্রামবাসীদের কাছ থেকে অল্প কিছু টাকা তুলে আমরা রাস্তার ওপর গর্তের কিছু অংশ ভরাট করেছি। কিন্তু তারপর ও জলাবদ্ধতার হাত থেকে রেহাই মিলছে না। স্থানীয় চেয়ারম্যানের কয়েকদফা বলে কোন সুফল মেলেনি।

উথলী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবুল কালাম জানান, পানি নিষ্কাশনের ড্রেন ও রাস্তায় মাটি দিয়ে উঁচু করে তবেই নতুনভাবে তৈরি করতে হবে । এই মুহূর্তে জরুরি ভাবে সমাধান করা সম্ভব না। তবে আগামীতে নতুন প্রকল্পে রাস্তাটি অন্তর্ভুক্ত করে বাস্তবায়নের উদ্যোগ নেয়া হবে।
জীবননগর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হাজী হাফিজুর রহমান জানান, স্থানীয় ইউনিয়ন চেয়ারম্যান প্রকল্পভুক্ত না করলে আমাদের জন্য একটু সমস্যা হয়। ওই ইউনিয়নের চেয়ারম্যানের সাথে যোগাযোগ করে দ্রুত রাস্তার পানি নিষ্কাশনের ড্রেন সহ চলাচলের উপযোগী করার চেষ্টা করবো।