জীবননগরে ইউএনও’র উপর হামলার মামলায় আরো ৫ জন গ্রেফতার


জীবননগর অফিস: জীবননগর উপজেলা নির্বাহী অফিসার এসএম মুনিম লিংকনের উপর হামলার ঘটনায় পুলিশ ৫ জনকে গ্রেফতার করেছে। বৃহস্পতিবার দিনগত রাত থেকে গতকাল শুক্রবার দুপুর পর্যন্ত চুয়াডাঙ্গা জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার কনক কুমার দাসের নেতৃত্বে জীবননগর থানা পুলিশ অভিযান চালিয়ে বিভিন্ন এলাকা থেকে তাদের গ্রেফতার করেন। গ্রেফতারকৃতরা হলেন- জীবননগর উপজেলার কাঁটাপোল গ্রামের আলিম মন্ডলের ছেলে ইভন (২২), মৃত আজিজুল মন্ডলের ছেলে রেজাউল ইসলাম (৬০), মকবুল হোসেনের ছেলে রবিউল হোসেন (৪০), পাঁকা গ্রামের সুশীল চন্দ্রের ছেলে সুভাষ (৩০) এবং পুরন্দপুর গ্রামের মৃত জেহের আলী মন্ডলের ছেলে লাল্টু (৪০)। এ ঘটনায় এ নিয়ে গ্রেফতারকৃত মোট আসামীর সংখ্যা দাঁড়ালো ১২ জন।
জীবননগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এসএম মুনিম লিংকন গত মঙ্গলবার হামলার শিকার হলে ওই রাতে জীবননগর থানায় রাষ্ট্রীয় কাজে বাঁধা প্রদানের জন্য একটি মামলা দায়ের করেন। মামলায় ১৯জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত আরো ৪০জনকে আসামী করা হয়েছে।
জীবননগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. সাইফুল ইসলাম জানান, জীবননগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এসএম মুনিম লিংকন উপর হামলার ঘটনায় মঙ্গলবার রাতে মামলা দায়েরের পর পুলিশ আসামিদের গ্রেফতারে অভিযান চালায়। অভিযানে ১২ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। বাকী আসামিদের গ্রেফতারে পুলিশি অভিযান অব্যাহত রয়েছে।
প্রসঙ্গতঃ চুয়াডাঙ্গার জীবননগর উপজেলার কাটাপোল গ্রামে ইটভাটার মাটি টানা ট্রাক্টরের চাকায় পিষ্ট হয়ে বাইসাইকেল চালক অহিদুল বিশ্বাস(৪০) মঙ্গলবার দুপুরে নিহত হয়। উত্তেজিত জনতা বিক্ষুব্ধ হয়ে সড়ক অবরোধ করে। খবর পেয়ে জীবননগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এসএম মুনিম লিংকন ঘটনাস্থলে গেলে বিক্ষুব্ধ গ্রামবাসী তার উপর হামলা চালায়। এ সময় ইউএনও প্রানভয়ে পালিয়ে একটি বাড়ীতে আশ্রয় নেয়। উত্তেজিত জনতা ওই বাড়ীতে ইউএনওকে অবরুদ্ধ করে রাখে। খবর পেয়ে চুয়াডাঙ্গার অতিরিক্ত পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি শান্ত করে ইউএনওকে উদ্ধার করে।
চুয়াডাঙ্গার পুলিশ সুপার জাহিদুল ইসলাম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) তারেক আহম্মেদ এবং অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) জাহাঙ্গীর আলম ঘটনাস্থলে পরিদর্শন করেছেন।