ছেলেকে সুস্থ্য করতে দিয়ে লাশ কাধে ফিরলো বাবা হত্যার বিচার চেয়ে এলাকা বাসির মানববন্ধন

জীবননগর অফিস:চুয়াডাঙ্গার জীবননগরে এসএসসি পরীক্ষার্থী মাহফুজ (১৯) মাদকাসক্ত । নেশার টাকা না পেলে পরিবারের সদস্যদের সাথে খারাপ আচারণ শুরু করে। মাদকাসক্ত ছেলেকে সুস্থ্য করতে পাঠানো হয় যশোর বেসরকারি মাদক নিরাময় ও পূর্নবাসন কেন্দ্র রিহ্যাব। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় নির্যাতনের শিকার হয়ে মারা যায় সে। পরিবারের সদস্যদের খবর দেয়া হয় মাহফুজ অসুস্থ। সেখানে পৌছে হাসপাতালের লাশঘরে মিললো তার মরদেহ।
গতকাল মঙ্গলবার সকাল ১০টায় স্থানীয় এলাকাবাসী ও সহপাঠীদের আয়োজনে জীবননগর শহরের বাসস্ট্যান্ড চত্বরে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। এসময় নির্যাতনের শিকার মাহফুজ হত্যাকান্ডে অভিযুক্তদের শাস্তির দাবি জানিয়ে বক্তব্য রাখেন জীবননগর উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক (ভারপ্রাপ্ত) নজরুল ইসলাম, সাবেক পৌর মেয়র জাহাঙ্গীর আলম, পৌর আওয়ামীলীগের সভাপতি মুন্সী নাসির উদ্দীন।

নির্যাতনের শিকার নিহত মাহফুজ জীবননগর পৌরসভার মহানগর দক্ষিন পাড়ার মনিরুজ্জামানের ছেলে।
পরিবারের সদস্যরা জানায়, মাহফুজ মাদকাসক্ত হয়ে পড়লে তাকে সুস্থ করার জন্য জীবননগর থানা পুলিশের সহযোগীতায় গত ২৬ এপ্রিল যশোর মাদকাসক্ত নিরাময় কেন্দ্রে ভর্তি করা হয়। কেন্দ্রের পরিচালক মাসুদ করিম ২২ মে দুপুরে তাদেরকে মাহফুজ অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে জানান। বাবা মনিরুজ্জামান খবর পেয়ে পরিবারের সদস্যদের সাথে নিয়ে যশোর সদর হাসপাতালে পৌছে খোজা খুজি শেষে লাশ ঘরে ছেলের মরদেহ দেখতে পায়।
যশোর কতোয়ালী মডেল থানার ওসি (তদন্ত) তাসমিন বলেন, অভিযোগ পেয়ে তারা মাদকাসক্ত নিরাময় কেন্দ্রের ভিডিও ফুটেজ উদ্ধার করে। ফুটেজে মাহফুজের উপর নির্যাতনের সত্যতা পাওয়া যায়। এঘটনায় নিহতের বাবা মনিরুজ্জামান বাদি হয়ে থানায় মাদকাসক্তের পরিচালক সহ ১৪ জনের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা দায়ের করে। পুলিশ অভিযুক্ত ১৪জনকে গ্রেপ্তার করে আদালতের মাধ্যমে জেল-হাজতে প্রেরণ করেছে।