চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলা গবর গাড়ায় জামায়াতে টানা ৪০ দিন পাচঁ ওয়াক্ত নামাজ আদায় করায় পাঞ্জাবী উপহার দিলেন মসজিদ কমিটি
তিতুদহ প্রতিনিধি:ইসলাম মানবতার ধর্ম করোনা মহামারীতে ইসলামের প্রতি ভালোবাসার নজির স্থপন করলো গবর গাড়া গ্রামের একদল শিশু। টানা ৪০ দিন জামায়াতের সাথে নামাজ পরে উপহার পেল ২০ জন শিশু। মসজিদ কমিটির এ ধরনের উদ্যোগ কে সাধুবাদ জানিয়েছে সুধিমহল।
জানা যায় চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার গড়াইটুপি ইউনিয়নের গোবর গাড়া গ্রামের আনন্দ বাজার জামে মসজিদ কমিটির উদ্যোগে টানা ৪০ দিন পাচঁ ওয়াক্ত নামাজ পড়ায় ২০জন বাচ্চাকে বিশেষ উপহার দেওয়া হলো।
দীর্ঘ একবছরের বেশি সময় ধরে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ। বাড়ীতে আসল সময় পাড় করছে বাচ্চারা। আনন্দ বাজার জামে মসজিদের উদ্যোগে প্রথমে পবিত্র কুরআন শরীফ শিক্ষার ব্যাচ চালু করা হয়।বর্তমানে অনেক বয়স্ক মানুষও পবিত্র আল-কুরআন শরীফ পড়তে পারে,এমনি কি যারা আগে পড়তে পারতো কিন্তু ভুলে গেছে তারাও এখন পড়তে পারে আল-কুরআন শরীফ।
সকল মসজিদের ন্যায় আনন্দ বাজার জামে মসজিদেও প্রতিদিন সকাল বেলা আরবী ও কুরআন শিক্ষা দেওয়া হয়।নামাজে বাচ্চারা তেমন আসে না প্রায় অনিয়মিত পাচঁ ওয়াক্তে,তাই বাচ্চাদের নামাজে আগ্রহী করতে এক বছর ক্রম উদ্যোগ গ্রহণ করে আনন্দ বাজার জামে মসজিদ কমিটি।সেসকল বাচ্চারা নিয়মিত দৈনিক পাচঁ ওয়াক্ত নামাজ আদায় করবে তাদের জন্য বিশেষ উপহার দেওয়া হবে। এমন উদ্যোগের সংবাদ শুনে ২০জন বাচ্চা নিয়মিত আরবী ও কুরআন শিক্ষার পাশাপাশি পাচঁ ওয়াক্ত নামাজ পড়া শুরু করে। বর্তমানে মসজিদের নিয়মিত মুসল্লিদের ন্যায় বাচ্চারাও নিয়মিত নামাজ আদায় করছে।
টানা ৪০দিন পাচঁ ওয়াক্ত বাচ্চারা নামাজ আদায় করে জামাতের সাথে। মসজিদ কমিটির পক্ষ থেকে দেওয়া হলো গতকাল শুক্রবার জুম্মা নামাজের পর ২০জনকে বিশেষ উপহার। ২০জনকে পাঞ্জাবি ও টুপি মুবারক উপহার হিসাবে দেওয়া হয়।এছাড়াও জুম্মা নামাজের পর দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয় ও সকল মুসল্লিদের জন্য দুপুরের খাবার বিরানী রান্না করে বিতরণ করা হয় মসজিদ কমিটির পক্ষ থেকে।
এসময় উপস্থিত ছিলেন আনন্দ বাজার জামে মসজিদের সভাপতি মোঃ তৈয়বুর রহমান,আনন্দ বাজার জামে মসজিদের খতিব মাওলানা মোঃ জিয়াউর রহমান,হাজী নুরুল হক প্রধান,রশিদ মন্ডল,হোসেন মন্ডলসহ আরো অনেকে।