স্টাফ রিপোর্টার : “বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে তৎকালীন পাকিস্থান সরকারের পক্ষ থেকে একাধিকবার প্রধান মন্ত্রীত্বের অফার দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু বাঙালী জাতির স্থপতি বঙ্গবন্ধু সে অফার না গ্রহন করে মনে-প্রাণে চেয়েছিলেন বাঙালী জাতির স্বাধীনতা,সাবোর্ভৌমত্ব। মুক্ত করতে চেয়েছিলেন দীর্ঘদিনের শাসন-শোষণ ও বঞ্চনা থেকে। তিনি দেশটাকে একটি পরিবার ভাবতেন । তাইতো অতি অল্পদিনেই যুদ্ধ বিধস্ত দেশটিকে শিক্ষা-দীক্ষায় এবং অর্থনৈতিক ভাবে সমৃদ্ধ করার চেষ্টা করছিলেন। তিনি মনে প্রাণে বিশ্বাস করতেন শিক্ষা ছাড়া উন্নত ও সমৃদ্ধ জাতি গঠন সম্ভব নয়। তাইতো প্রাথমিক শিক্ষাকে সবার আগে গুরুত্ব দিয়েছিলেন। ” গতকাল বুধবার বিকেল ৪টায় চুয়াডাঙ্গা রেলবাজার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের হল রুমে চুয়াডাঙ্গায় মুজিব শতবর্ষে সদর উপজেলার ১২১টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সজ্জিতকরণের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের আলোচনা সভায় প্রধান অতিথীর বক্তব্যে উপরোক্ত কথাগুলো বলেন জেলা প্রশাসক নজরুল ইসলাম সরকার। মুজিবর্ষে শিক্ষার্থীদের পড়া-লেখার পাশা-পাশি আনন্দ-বিনোদন ও খেলা-ধূলার মনোরম পরিবেশ তৈরীতে যে উদ্যোগ সরকার গ্রহন করেছেন বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার তার ভূয়সী প্রশংসা করেন জেলা প্রশাসক নজরুল ইসলাম সরকার।
অনুষ্ঠানের সভাপতি সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ সাদিকুর রহমান বলেন, প্রাথমিক বিদ্যালয় গুলো রঙ্গিন ও সজ্জিত করণের পাশাপশি শিক্ষার্থীদেরকে লেখা পড়ায় আরো মনোযোগী করার জন্য স্মার্ট স্কুল করা হবে। প্রাথমিক ভাবে সদর উপজেলার প্রতিটি ইউনিয়নে ২টি করে বিদ্যালয়কে স্মার্ট স্কুলের কার্যক্রম চালু করা হবে। চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ সাদিকুর রহমানের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথী ছিলেন সাবেক অধ্যক্ষ এসএম ইসরাফিল,চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মোস্তাফিজুর রহমান ও রেলবাজার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি নাসির আহাদ জোয়ার্দ্দার। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার উত্তম কুমার কুণ্ড। পুলিশ লাইন্স সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুস সলামের সঞ্চালনায় আরো উপস্থিত ছিলেন সহকারি প্রাথমিক শিক্ষা অফিসারগন ও বিভিন্ন বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক গন। জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, মুজিব বর্ষে প্রায় দেড় কোটি টাকা ব্যয়ে জেলার প্রাথমিক বিদ্যালয় গুলো রঙিন ও সজ্জ্বিত করণ করা হবে। ইতি মধ্যেই সদর উপজেলার ১২১টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়কে রঙ্গিন ও সজ্জিতকরণ করা হয়েছে। এ ছাড়া জেলার সকল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়কে পর্যায়ক্রমে শতভাগ সজ্জিত করণ করা হবে।

অনুষ্টানের শুরুতে জেলা প্রশাসক নজরুল ইসলাম সরকার ও সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ সাদিকুর রহমান ফলক উম্মোচন করে মুজিব শতবর্ষে উপজেলার ১২১টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সজ্জিতকরণের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনী করেন। ফলক উম্মোচন শেষে রেলবাজার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সভাপতি নাসির আহাদ জোয়ার্দ্দার অতিথীদের কে বিদ্যালয়ের সু-সজ্জিত গ্রন্থাগার , মাল্টিমিডিয়া ক্লাসরুম,নামাজঘর,ফুলের বাগান,ওয়াশরুম,বাচ্চাদের খেলার ঘর ঘুরিয়ে ঘুরিয়ে দেখান। অতিথীরা বিদ্যালয়ের পরিবেশ দেখে সন্তোষ প্রকাশ করেন।