চুয়াডাঙ্গা টি.টি.সি এর ইংরেজী শিক্ষক শাখাওয়াতের দায়িত্বে অবহেলা ইংরেজী ভাষা প্রশিক্ষণ থেকে বঞ্চিত প্রশিক্ষণার্থীরা

স্টাফ রিপোর্টারঃবৈদেশিক মন্ত্রণালয় দ্বারা পরিচালিত দক্ষ জনশক্তি গড়ার লক্ষে চুয়াডাঙ্গায় প্রতিষ্ঠিত কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্র (টি.টি.সি) এর ইংরেজী ভাষা শিক্ষক শাখাওয়াত হোসেন ২০১৫ সালে ইংরেজী ভাষা প্রশিক্ষক হিসেবে নিয়োগ পেলেও এ অবদি পর্যন্ত উল্লেখযোগ্য শিক্ষার্থীদের কোন প্রশিক্ষণ না দিয়েই প্রতিমাসে সরকারের বরাদ্ধকৃত মাসিক বেতনের টাকা তুলে নিচ্ছেন। গত ছয় বছর ধরে চুয়াডাঙ্গা টি.টি.সি তে ইংরেজী শিক্ষক হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছে। কিন্তু এ অবদি পর্যন্ত ইংরেজী ভাষা প্রশিক্ষণ দেয়া হয়নি কোন শিক্ষার্থী কে। শুধু আসা আর যাওয়ার মধ্য দিয়ে কাটিয়ে আসছেন ৬টি বছর। এ বিষয়ে শিক্ষক শাখাওয়াতের কাছে জানতে চাইলে তিনি সাংবাদিকদের সাথে কথা বলতে চাননি। তার বিরুদ্ধে পূর্বে বেশ কয়েকবার  সংবাদ প্রকাশ হওয়ার পরেও কোন ব্যবস্থা না হওয়ায় তিনি বহাল তবিয়তে দিন পার করছেন।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়,প্রতিষ্ঠানের ইংরেজী ভাষা প্রশিক্ষক শাখাওয়াত হোসেনের উপস্থিতি নাই। বিষয়টি নিয়ে প্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষ মোঃ মুছাব্বেরুজ্জামান বলেন, আপনারা আসার কিছুক্ষন পূর্বে তিনি শারিরিক অসুস্থতার কথা বলে ছুটি নিয়ে চলে গেছেন। তার ইংরেজী ভাষা প্রশিক্ষণ  শাখায় কতোজন শিক্ষার্থী  প্রশিক্ষণ নিচ্ছে এ বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, বর্তমানে তার শাখায় কোন শিক্ষার্থী নাই। কিছুদিন আগে তিনজন শিক্ষার্থী ঐ শাখায় ভর্তি হলে প্রশিক্ষণ না দিয়ে ভর্তির টাকা তাদেরকে ফেরত দেয়া হয়। অথচ বৈদেশিক কর্মসংস্থানে কাজ করতে যাওয়া প্রত্যকেরই ইংরেজী শিক্ষার বেসিক জ্ঞান থাকার প্রয়োজন হলেও শাখাওয়াত হোসেনের দায়িত্বে অবহেলার কারনে মাসের মাসের পর মাস পার হলেও এ অবদি পর্যন্ত একজনকে প্রশিক্ষণ নিতে দেখা যায়নি। অথচ তিনি দায়িত্বে অবহেলা করে বহাল তবিয়তে রয়েছেন চুয়াডাঙ্গা টি.টি.সি.তে। ইতিপূর্বে তার বিরুদ্ধে অনেক অভিযোগ থাকলেও তার বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা না হওয়ায় বহাল তবিয়তে রয়েছেন তিনি।