চুয়াডাঙ্গায় মহান স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে ফুটবল টুর্নামেন্টের ফাইনাল ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠিত

চ্যাম্পিয়ন সদর উপজেলা একাদশ এবং রানারআপ আলমডাঙ্গা উপজেলা একাদশ

স্টাফ রিপোর্টার: চুয়াডাঙ্গায় মুজিব শতবর্ষ ও স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী উদযাপন উপলক্ষে ফুটবল টুর্ণামেন্টের ফাইনাল খেলা ও পুরস্কার বিতরণ সম্পন্ন হয়েছে। গতকাল বুধবার বিকেল ৩টায় চুয়াডাঙ্গা পুরাতন স্টেডিয়ামে টূর্নামেন্টের ফাইনাল খেলা শুরু হয়। ফাইনালে মুখোমুখি হয় চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলা একাদশ ও আলমডাঙ্গা উপজেলা একাদশ। ফাইনালে চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলা দল ১-০ গোলে আলমডাঙ্গা উপজেলাকে পরাজিত করে চ্যাম্পিয়ণ হওয়ার গৌরব অর্জন করে। চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলা দলের পক্ষে একমাত্র জয়সূচক গোলটি করেন জুয়েল। ফাইনাল খেলা শেষে প্রধান অতিথী হিসেবে উপস্থিত থেকে চ্যাম্পিয়ণ ও রানার আপ দলের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করেন চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রশাসক ও জেলা ক্রীড়া সংস্থার সভাপতি নজরুল ইসলাম সরকার।
এর আগে সেখানে সংক্ষিপ্ত এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে জেলা প্রশাসক নজরুল ইসলাম সরকার বলেন, মুজিব শতবর্ষ ও স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী উদযাপন উপলক্ষে আয়োজিত ফুটবল টূর্নামেন্টটি সোহার্দ্যপূর্ণ পরিবেশে সকলের অংশ গ্রহনে সফল হয়েছে। মুজিব শতবর্ষ ও স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীর বছরে আমরা সবাই শপথ নিব। সবাই বলবো মুজিব বর্ষের অঙ্গিকার মাদক করবো পরিহার। চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে যে ১০ দিনের কর্মসূচী শুরু করা হয়েছিল তারই অংশ হিসেবে আজ ফুটবল টূর্নামেন্ট শেষ হলো। এখরও ২৮ মার্চ পর্যন্ত লাগাতার অনুষ্টান অনুষ্ঠিত হবে।
অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মনিরা পারভীনের সভাপতিত্বে পুরস্কার বিতরনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথী ছিলেন, চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মুহাম্মদ সাদিকুর রহমান, চুয়াডাঙ্গা জেলা যুবলীগের আহ্বায়ক ও জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক নঈম হাসান জোয়ার্দ্দার ,চুয়াডাঙ্গা মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের সহকারি পরিচালক শরিয়ত উল্লাহ, এনডিসি আমজাদ হোসেন, নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট হাবিবুর রহমান, সুরাইয়া মমতাজ,জান্নাতুল ফেরদৌস,ফিরোজ হোসেন, নুর পেয়ারা বেগম,শহিদুল আলম,রিফাত জাহান,সাদাত হোসেন,নজরুল ইসলাম, মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রন অধিদপ্তরের পরিদর্শক আব্দুল্লাহ আল মামুন ও মার্কেটিং অফিসার শহিদুল ইসলাম।
টূর্নামেন্টের চ্যাম্পিয়ণ চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলা দলের ম্যানেজার ছিলেন নাসির আহাদ জোয়ার্দ্দার ও কোচ ছিলেন মুসাব্বির আহম্দে সুমন। এ ছাড়া উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন জেলা ক্রীড়া সংস্থার সহ-সভাপতি মাহাবুল ইসলাম সেলিম,যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সালাউদ্দীন বিশ্বাস মিলন, নির্বাহী সদস্য আব্দুল মালেক,রায়হান উদ্দীন, মহসিন রেজা, শেখ রাসেল,মমিন খান,রাশেদুল ইসলাম, সাবেক কৃতি রেফারী ও ক্রীড়াবিদ ওয়ালিউল্লাহ সিদ্দিক,মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাবের আহবায়ক কমিটির সদস্য আসাবুল হক, ফুটবলার তরিকুল ইসলাম তরু, মুরাদ ফেরদৌম প্রমুখ।
টুর্নামেন্টের চ্যাম্পিয়ণ ট্রফি-রানার আপ ট্রফি, প্রাইজমানি,ম্যান অবদি ম্যাচ, সেরা গোল রক্ষক,সবোর্চ্চ গোলদাতা ও ম্যান অবদি টূর্নামেন্টের পুরস্কার প্রদান করেন চুয়াডাঙ্গা মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রন অধিদপ্তর। ফাইনাল খেলাটি পরিচালনা করেন রেজাউল হক রিজু,লিটা হোসেন ও রিয়ান আহম্মেদ।