স্টাফ রিপোর্টার: চুয়াডাঙ্গায় তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে মোতালেব হোসেন (৪৫) ও তার ছেলে আপন হোসেনকে (২০) প্রকাশ্যে কুপিয়েছে প্রতিবেশি আবুল কালাম। এ ঘটনায় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আপন হোসেনের মৃত্যূ হলেও আশঙ্কাজনক অবস্থায় মোতালেব হোসেনকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হয়েছে। গতকাল রোববার সন্ধা সাড়ে ৭ টার দিকে চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার ফুলবাড়ি পশ্চিমপাড়ায় এ ঘটনা ঘটে। বাড়িতে পানি যাওয়া এবং ইজিবাইক চলাচলে অসুবিধা সৃষ্টি হওয়ার জেরে প্রতিবেশি আবুল কালাম ও তার পরিবারের লোকজন মিলে তাদেরকে ধারালো অস্ত্রো দিয়ে কুপিয়েছে। এ ঘটনায় আবুল কালাম কিছুটা আহত হয়েছে। পরে সদর থানার পুলিশ অভিযান চালিয়ে আবুল কালামকে গ্রেফতার করেছে।


আহত মোতালেব হোসেনের স্ত্রী কোমেলা বেগম বলেন,প্রতিবেশি আবুল কালামের সাথে বাড়িতে পানি যাওয়া নিয়ে তাদের বিরোধ চলে আসছিল। রোববার বাড়িতে প্রবেশের রাস্তার উপর নালা কাটে আবুল কালাম। এতে তাদের বাড়ির পানি সব আমাদের বাড়িতে চলে আসছে। নিষেধ করায় উভয় পরিবারের মধ্যে কথা কাটাকটি হয়। এরই জেরে গতকাল সন্ধায় আমি বাড়ির সামনে দাড়িয়ে ছিলাম এ সময় কালামের স্ত্রী জাহিরন আমাকে অকথ্য ভাষায় গালাগাল করে। এসময় আমার স্বামী মোতালেব হোসেন ও ছেলে আপন হোসেন এর প্রতিবাদ করতে গেলে কালাম, তার স্ত্রী জাহিরন, ছেলে রাজিবুল এবং দুই মেয়ে নাজমা ও সিমলা বাড়ি থেকে হেসো ও বটি বের করে এনে আমাদের কোপাতে থাকে।


রক্তাক্ত অবস্থায় মোতালেব হোসেন ও আপনকে উদ্ধার করে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের জরুরি বিভাগে। প্রাথমিক চিকিৎসার পর তাদেরকে ভর্তি করার কিছুক্ষণ পর আপন হোসেনের মৃত্যু হয়। এদিকে মোতালেব হোসেনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হয়েছে।
চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের জরুরি বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. মাহবুবুর রহমান বেলন, আপনের শরীর থেকে অতিরিক্ত রক্তক্ষরণ হয়েছে। ভর্তির কিছুক্ষণ পর সে মারা যায়। আহত মোতালেবের অবস্থায় আশঙ্কাজনক। উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার করা হয়েছে।
এদিকে, ঘটনার পরপরই চুয়াডাঙ্গা সদর থানার অফিসার ইনচার্জ আবু জিহাদ ফকরুল আলম খানের নেতৃত্বে ফুলবাড়ি গ্রামে অভিযান চালিয়ে ঘাতক আবুল কালামকে গ্রেফতার করা হয়েছে।
চুয়াডাঙ্গা সদর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আবু জিহাদ ফকরুল আলম খান বলেন, ঘটনার পরপরই অভিযান চালিয়ে আবুল কালামকে প্রেফতার করা হয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে একটি হাসুয়া উদ্ধার করা হয়েছে।