স্টাফ রিপোর্টার: আমরা কাজ করা মানুষ, আমরা চুয়াডাঙ্গার সার্বিক উন্নয়ন করেছি এবং আগামীতেও উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে চাই। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা আমাকে যোগ্য মনে করেই নৌকা প্রতিক দিয়েছেন। আমি তাকে শ্রদ্ধাভরে কৃতজ্ঞতা ও সন্মান জানাই। কথাগুলো বলেন চুয়াডাঙ্গা জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এবং আসন্ন চুয়াডাঙ্গা পৌরসভার নৌকার মাািঝ রিয়াজুল ইসলাম জোয়ার্দ্দার টোটন। গতকাল রোববার সন্ধ্যায় চুয়াডাঙ্গা জেলা আওয়ামী লীগের কার্যালয়ের সামনে তাকে সংবর্ধ্বণা অনুষ্ঠানে দলীয় নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্য করে তিনি কথাগুলো বলেন। চুয়াডাঙ্গা জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি চুয়াডাঙ্গা-১ আসনের সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা সোলায়মান হক জোয়ার্দ্দার ছেলুন এমপিকে কৃতজ্ঞতা ও সন্মান জানিয়ে এ সময় তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ প্রতিষ্ঠিত ও সুসঙ্গঠিত একটি দল। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আমাকে মনোনয়ন দিয়ে আমার পৌরসভাকে আরও এগিয়ে দিয়েছেন। তিনি আওয়ামীগের অঙ্গ ও সহঅঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্য করে বলেন, আপনারা নৌকার নির্বাচন করার জন্য আজ থেকে মাঠে নেমে যান। ইনশাআল্লাহ্ জয় আমাদের হবেই। আসন্ন চুয়াডাঙ্গা পৌরসভা নির্বাচনে জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রিয়াজৃুল ইসলাম জোয়ার্দ্দার টোটন নৌকার মাঝি হিসাবে দলীয় মনোনয়ন পাওয়ার পর গতকাল রোববার দুপুর ১২ টায় ঢাকা থেকে সড়ক পথে চুয়াডাঙ্গার উদ্দেশ্যে যাত্রা শুরু করেন। পথিমধ্যে ঝিনাইদহ পৌছালে বঙ্গবন্ধু প্রজন্মলীগের পক্ষ থেকে সেখানে তাকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানানো হয়। তখন দুপুর গড়িয়ে বিকেল, চুয়াডাঙ্গার প্রবেশ মুখ বদারগঞ্জ বাজারে অপেক্ষায় ছিলেন আওয়ামীগের নেতাকর্মীরা। প্রিয় নেতা রিয়াজুল ইসলাম জোয়ার্দ্দার টোটন সেখানে আগে থেকে অপেক্ষমান চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার কুতুবপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ এর সাধারন সম্পাদক  আলী আহম্মেদ হাসানুজ্জামান মানিকের নেতৃত্বে সেখানে তাকে ফুলেল শুভেচ্ছা শেষে সংবর্ধিত করা হয়। সেখান থেকে বিশাল গাড়িবহর নিয়ে পৌছায় সরোজগঞ্জ বাজারে সেখানে তাকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানানো হয় এবং আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। সন্ধ্যায় পৌছায় ডিঙ্গেদহ বাজারে। সেখানে দলীয় নেতাকর্মীদের সাথে নিয়ে প্রিয় নেতা রিয়াজুল ইসলাম জোয়ার্দ্দারকে সংবর্ধ্বনা জানান শংকরচন্দ্র ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ এর সভাপতি  বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রহমান। পথিমধ্যে চুয়াডাঙ্গা বাসটার্মিনাল এবং রেলবাজার দোকান মালিক সমিতির পক্ষ থেকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানানো হয়। চুয়াডাঙ্গা জেলা বাস-ট্রাক সড়ক পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক ও জাতীয় শ্রমিকলীগ চুয়াডাঙ্গা জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক রিপন মন্ডল এবং মাইক্রোস্ট্যান্ড শ্রমিক ইউনিয়নের পক্ষ থেকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানানো হয়। এদিকে, গতকাল বিকেল থেকেই আওয়ামী লীগের দলীয় কার্যালয়ের সামনে অপেক্ষায় ছিলেন হাজারো জনতা। সন্ধা সাড়ে ৬ টায় গাড়ি বহর সেখানে পৌছালে নেতাকর্মীরা আনন্দ উল্লাশে মেতে উঠেন  জেলা আওয়ামী লীগ, পৌর আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, শ্রমিকলীগ, মহিলা আওয়ামী লীগ, যুব মহিলালীগ, স্বাস্থ্যবিভাগ, ছাত্রলীগসহ ভক্তরা তাকে ফুলেল শুভেচ্ছায় শিক্ত করেন। সে সময় সেখানে মিষ্টি বিতরণসহ চলে আনন্দ উৎসব। এ সময় চুয়াডাঙ্গা পৌর আওয়ামীলীগ এর আয়োজনে আলোচনা সভায় নৌকার মাঝি রিয়াজুল ইসলাম জোয়ার্দ্দার টোটন তার বক্তব্যে উপরউল্লেখিত কথাগুলো বলেন।চুয়াডাঙ্গা পৌর আওয়ামীলীগ এর সভাপতি হাজী জহুরুল ইসলাম জোয়ার্দ্দার এর সভাপতিত্ব ভারপ্রাপ্ত সাধারন সম্পাদক আলাউদ্দিন হেলা’র উপস্থাপনায় উপস্থিত ছিলেন চুয়াডাঙ্গা জেলা আওয়ামীলীগ এর যুগ্ন-সাধারন সম্পাদক এ্যাড শামসুজ্জোহা, সাংগঠনিক সম্পাদক মুন্সী আলমগীর হান্নান,যুব ও ক্রীড়া সম্পাদক আরশাদ উদ্দিন আহামেদ চন্দন,উপ-প্রচার সম্পাদক শওকত আলি,কোষাধ্যক্ষ আলি রেজা সজল, নির্বাহী সদস্য এ্যাড বেলাল হোসেন পিপি,চুয়াডাঙ্গা পৌরসভার ০৯ টি ওয়ার্ড আওয়ামীলীগ এর সভাপতি ও সাধারন সম্পাদক বৃন্দ,শ্রমিক লীগের সভাপতি আফজালুল হক,সাধারন সম্পাদক রিপন মন্ডল,মহিলা আওয়ামীলীগ এর সাধারন সম্পাদক নুর নাহার কাকুলী,জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি আব্দুল কাদের, আব্দুর রসিদ,রেজাউল করিম,সাবেক সাধারন সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম আসমান,যুবমহিলা লীগের আহব্বায়ক আফরোজা পারভীন,মাখালডাঙ্গা ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ এর সভাপতি শ্রী বিশ্বজিত কুমার শাহা,সাধারন সম্পাদক রফিকুল ইসলাম,উপজেলা ভাইস-চেয়ারম্যান গরীব রুহানী মাসুম,শাহাজাদী মিলি সহ  পেশাজীবি সংগঠনের নেতৃবৃন্দ, আওয়ামীলীগ এর অঙ্গ সহযোগী এবং ভাতৃপ্রতিম সংগঠনের নেতাকর্মি বৃন্দ উপস্থিত ছিল।