স্টাফ রিপোর্টার :আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন উপলক্ষে নির্বাচনী গণসংযোগকালে জনগনের সেবক হিসেবে কাজ করতে চাওয়ার আশবাদ ব্যাক্ত করলেন  চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী কাফিউদ্দিন টুটুল।শাসক নয় জনগনের সেবক হিসেবে কাজ করতে চাওয়ার কথা বললেন দামুডহুদা উপজেলার  আসন্ন ৪ নং কুড়ুলগাছি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান পদে  পদপ্রার্থী। 
গতকাল   বিকাল ৫ টা  থেকে রাত ৯ টা  পর্যন্ত দামুড়হুদা উপজেলার কুড়ুলগাছি ইউনিয়নের অন্তর্ভুক্ত কুড়ালগাছি ও চন্ডিপুর   গ্রামে গণসংযোকালে নেতা কর্মী, ভোটার সহ  শুভানুধ্যায়ীদের কাছে উপরোক্ত  মন্তব্য করেছেন । চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী কাফিউদ্দিন  বলেন, ছাত্রজীবন থেকেই আমি  আওয়ামীলীগের রাজনীতির সাথে সক্রিয় থেকে দলের দুঃসময়ে রাজপথে ছিলাম।গণসংযোগ কালে উপস্থিত ছিলেন  চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী  কাফিউদ্দিন টুটুলের ভাই নুরু হাকিম।   নিষ্পাপতাই যার প্রধান শক্তি, ঠিক সেরকমই একজন অতি সাধারন মানুষ ।দেশের অন্যতম  জাতীয় জনপ্রিয় গণমানুষের মুখপত্র, ঢাকা থেকে প্রকাশিত দৈনিক সকালের সময় সম্পাদক প্রকাশক ও বিশিষ্ট মানবধিকারকর্মী মো.নূর হাকিম। সাধারণ মানুষের উদ্যোশে নূর হাকিম বলেন -আমি   যেভাবে পেরেছি সে ভাবেই মানুষের মাঝে  নিজেকে নিয়োজিত রেখেছি। মানুষের বিপদে মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে মানুষকে ভালোবাসা দিয়ে ভালবাসা পাওয়া আমার চেষ্টা করে গেছি। রাতদিন যখনই কোন মানুষের বিপদের কথা শুনেছি তখনি ছুটে গেছি অবহেলিত নির্যাতিত, মানুষের পাশে । সর্বোচ্চ সাধ্যমত চেষ্টা করেছি  মানুষের উপকার করতে। বাবা -মায়ের আর্শিবাদ আর  আপনাদের ভালোবাসায় আজ আমি   জাতীয় দৈনিক সকালের সময় পত্রিকায় মতো গরুত্বপুর্ণ প্রতিষ্ঠানে দায়িত্ব সুনামের সাথে পালন করে যাচ্ছি। আপনাদের সহযোগিতা  সাধারণ মানুষের পাশে আছি এবং সব- সময় থাকবো। আপনাদের ভালোবাসা ও দোয়া পেলে  আগামীতে আরও এগিয়ে যাবো। আগামী ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী হিসেবে আমার মেজ ভাই কাফিউদ্দিন টুটুলের পক্ষে সমর্থন ও সহযোগিতা করবেন আমি আশা রাখি। গণসংযোগ কালে চেয়ারম্যান  পদপ্রার্থী কাফিউদ্দীন টুটুল  বলেন আমিও একজন বঙ্গবন্ধু’র সৈনিক হিসেবে হতাশ না হয়ে মানুষের সাথে আছি, থাকবো। আমার বিশ্বাস আমি নৌকার পক্ষে মনোনয়ন পেলে ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হিসেবে মানুষ আমাকে নির্বাচিত করবে।আমি মনোনয়ন পেলে এবং নির্বাচিত হলে মুখ থুবড়ে পড়া ইউনিয়ন পরিষদকে ইউনিয়নবাসীর সেবাকেন্দ্র হিসেবে গড়ে তুলবো। সর্বত্র মানুষের পাশে থেকে কাজ করার চেষ্টা করবো ইনশাআল্লাহ।  তিনি আর বলেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা ১৯৪৭ থেকে ২০১৪ সময়কালের ইতিহাস পর্যালোচনা করলে দেখা যায়- গভীর নিষ্ঠা, সততা ও সাহসিকতায় সব প্রতিকূলতাকে দু’পায়ে মাড়িয়ে চরম সাফল্য অর্জন করেছেন বঙ্গবন্ধুকন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা। বর্তমানে তিনি গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী। প্রধানমন্ত্রীর উন্নয়ন কর্মকান্ড বিশ্বে এখন মডেল হিসেবে পরিচিতি পাচ্ছেন। সেই অগ্রযাত্রায় আমিও অংশীদার হয়ে এলাকার উন্নয়ন ও জনগণের পাশে থেকে কাজ করতে চায় । তিনি ভোটারদের উদ্দেশ্যে বলেন, আমি আপনাদের সেবা করার সুযোগ চাই,আমাকে একবারের মতো সুযোগ দিয়ে দেখবেন। আমি আপনাদের নিকট  আগামী ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন উপলক্ষে  দোয়া ও সমর্থন কামনা করি।