কার্পাসডাঙ্গা প্রতিনিধি:চুয়াডাঙ্গা জেলার  দামুড়হুদা উপজেলার কার্পাসডাঙ্গা ইউনিয়নের সুবুলপুর ও কাঞ্চনতলায় রেল লাইন স্থাপনের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল বুধবার বিকাল ৪ টার দিকে সুবুলপুর ও কাঞ্চনতলা গ্রামবাসির আয়োজনে সুবুলপুর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি আমিনুল ইসলাম ফুরুইের সভাপতিত্বে  সুবুলপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠ প্রাঙ্গনে প্রতিবাদ সমাবেশ শুরু হয়।প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তারা বলেন আমাদের এ গ্রামে আবাদি জমি একেবারে কম। এখানে তিন ফসলি চাষ হয়।আমরাও চাই সরকারের উন্নয়নের অংশীদার হতে।উন্নয়নমূলক কাজে আরো সহযোগীতা করতে। তবে আমাদের এ সামান্য পরিমান জমির উপর দিয়ে রেল লাইন গেলে রাস্তায় বসে বাদাম বিক্রি করা ছাড়া আর কোন উপায় থাকবেনা।রেললাইন প্রয়োজনে রাইসার বিলের উপর দিয়ে গেলে আমাদের ক্ষতি কম হবে।বাংলাদেশ  সরকারের মাননীয় প্রধান মন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা  ও রেল মন্ত্রীর সূদৃষ্টি কামনা করেন তারা।তারা আরো বলেন বর্তমান সরকার কৃষি বান্ধব সরকার। এ সরকারের আমলে কৃষকদের ক্ষতি হবে এটা আশা করা যায়না।তাছাড়া বক্তারা আরো বলেন প্রথম, দ্বিতীয় ও তৃতীয় চয়েজ বাদ দিয়ে কোন অদৃশ্য ক্ষমতার বলে চতুর্থ চয়েজ এলাকা  দিয়ে হুট করে পোল পোতা হচ্ছে তা কারো বোধগম্য নই।তবে এর কি পিছনে অন্য কোন কারন আছে কিনা এ নিয়ে ও প্রশ্ন তোলেন অনেকে।তবে সরকারের উন্নয়ন মূলক কাজের প্রশংসা করে বক্তারা জোর দাবী করেন রেল লাইন হোক তবে তিন ফসলি আবাদ জমি ক্ষতি না করে এক ফসলি জমির উপর দিয়ে গেলে তেমন একটে ক্ষতি হবেনা কৃষক দের বলে জানান বক্তারা  । এসময় উপস্থিত ছিলেন  আওয়ামী লীগনেতা সাবেক মেম্বর মোঃ শরীফ, আশাবুল হক আশা পাল, আক্তাদির রহমান, ইউপি সদস্য সিরাজুল ইসলাম, কাশেম কল্লা, সাবেক মেম্বর লিয়াকত আলি,অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন  শিক্ষক আবু বক্কর সিদ্দিক।

প্রতিনিধি:চুয়াডাঙ্গা জেলার  দামুড়হুদা উপজেলার কার্পাসডাঙ্গা ইউনিয়নের সুবুলপুর ও কাঞ্চনতলায় রেল লাইন স্থাপনের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল বুধবার বিকাল ৪ টার দিকে সুবুলপুর ও কাঞ্চনতলা গ্রামবাসির আয়োজনে সুবুলপুর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি আমিনুল ইসলাম ফুরুইের সভাপতিত্বে  সুবুলপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠ প্রাঙ্গনে প্রতিবাদ সমাবেশ শুরু হয়।প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তারা বলেন আমাদের এ গ্রামে আবাদি জমি একেবারে কম। এখানে তিন ফসলি চাষ হয়।আমরাও চাই সরকারের উন্নয়নের অংশীদার হতে।উন্নয়নমূলক কাজে আরো সহযোগীতা করতে। তবে আমাদের এ সামান্য পরিমান জমির উপর দিয়ে রেল লাইন গেলে রাস্তায় বসে বাদাম বিক্রি করা ছাড়া আর কোন উপায় থাকবেনা।রেললাইন প্রয়োজনে রাইসার বিলের উপর দিয়ে গেলে আমাদের ক্ষতি কম হবে।বাংলাদেশ  সরকারের মাননীয় প্রধান মন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা  ও রেল মন্ত্রীর সূদৃষ্টি কামনা করেন তারা।তারা আরো বলেন বর্তমান সরকার কৃষি বান্ধব সরকার। এ সরকারের আমলে কৃষকদের ক্ষতি হবে এটা আশা করা যায়না।তাছাড়া বক্তারা আরো বলেন প্রথম, দ্বিতীয় ও তৃতীয় চয়েজ বাদ দিয়ে কোন অদৃশ্য ক্ষমতার বলে চতুর্থ চয়েজ এলাকা  দিয়ে হুট করে পোল পোতা হচ্ছে তা কারো বোধগম্য নই।তবে এর কি পিছনে অন্য কোন কারন আছে কিনা এ নিয়ে ও প্রশ্ন তোলেন অনেকে।তবে সরকারের উন্নয়ন মূলক কাজের প্রশংসা করে বক্তারা জোর দাবী করেন রেল লাইন হোক তবে তিন ফসলি আবাদ জমি ক্ষতি না করে এক ফসলি জমির উপর দিয়ে গেলে তেমন একটে ক্ষতি হবেনা কৃষক দের বলে জানান বক্তারা  । এসময় উপস্থিত ছিলেন  আওয়ামী লীগনেতা সাবেক মেম্বর মোঃ শরীফ, আশাবুল হক আশা পাল, আক্তাদির রহমান, ইউপি সদস্য সিরাজুল ইসলাম, কাশেম কল্লা, সাবেক মেম্বর লিয়াকত আলি,অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন  শিক্ষক আবু বক্কর সিদ্দিক।