আলমডাঙ্গা অফিস:পুলিশের তাড়া খেয়ে আলমডাঙ্গার ভাংবাড়িয়ায় মাথাভাঙ্গা নদীতে ঝাঁপ দিয়ে টোকন (৪৫) নামের ব্যক্তি নিখোঁজ হয়েছে। জুয়া খেলার সংবাদ পেয়ে বুধবার বেলা ১১ টার দিকে ক্যাম্প পুলিশ ঘটনাস্থল ভাংবাড়িয়া কারিকর পাড়ায় অভিযান চালালে টোকনসহ দুইজন নদীতে ঝাঁপ দেয়। নদী থেকে একজন ওপারে গিয়ে উঠলেও টোকনের সন্ধান মেলেনি। সংবাদ পেয়ে চুয়াডাঙ্গা সদর সার্কেলসহ থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। এদিকে নিখোঁজ ব্যক্তির সন্ধানে ডুবুরি দলকে তলব করা হয়েছে।

জানা গেছে,আলমডাঙ্গার ভাংবাড়িয়া কারিকর পাড়ার জুযা খেলা হচ্ছে এমন সংবাদের ভিত্তিতে হাটবোয়ালিয়া ক্যাম্প পুলিশের আইসি জাইফুল ইসলাম সঙ্গীয় ফোর্সসহ অভিযান চালায়। পুলিশের উপস্থিতি পের পেয়ে সেখানে থাকা কয়েকজন দৌড় দেয়। দু’জনকে আটক করে পুলিশ। এদিকে পুলিশের তাড়া খেয়ে নদীতে ঝাপ দেয় ভাংবাড়িয়া নতুন পাড়ার মৃত ওদুছদ্দীনের ছেলে টোকন ও কারিকর পাড়ার মৃত সুন্নত আলীর ছেলে নাজিম উদ্দিন। নাজিম উদ্দিন নদী পর হয়ে ওপারে গিয়ে উঠলেও টোকন নদী থেকে আর ওঠেনি। এ সংবাদ শোনার পর চুয়াডাঙ্গা সদর সার্কেল আনিসুজ্জামান ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।এ সময় উপস্থিত ছিলেন আলমডাঙ্গা থানার ওসি তদন্ত আব্দুল আলিম,ওসি অপারেশন একরামুল হক।
পরে সংবাদ দেওয়া হয় আলমডাঙ্গা ফায়ার সার্ভিসে। ফায়ার সার্ভিসের কর্মিরা ঘটনাস্থলে গিয়ে নিখোঁজ ব্যক্তিকে অনেক খুঁজেও কোন সন্ধান করতে পারেনি। তাকে খোঁজ করতে খুলনায় ডুবুরি দলকে ডাকা হয়েছে। ডুবুরি আসলে আবারও উদ্ধার অভিযান চালানো হবে।
নদীতে ঝাঁপ দিয়ে”নিখোঁজ টোকনের বড় ভাই আকালী বলেছেন, আমার সাঁতার না জানা ভাই পুলিশের তাড়া খেয়ে নদীর পানিতে ঝাপ দিতে বাধ্য হয়েছে। আমার ভাই তাস খেলছিলো, জুয়া খেলেনি। এদিকে এলাকার অনেকে অভিযোগ করেন — ঘটনাস্থল থেকে হাটবোয়ালিয়া ক্যাম্প পুলিশ গ্রামের ইয়াদুলের ছেলে করিরুল ও আব্দুর রহমানের ছেলে আকসেদকে আটক করে। পরে স্থানীয় মেম্বর আসমতুল্লাহ সুজনের মধ্যস্থতায় ২৮ শ টাকার বিনিময়ে ছেড়ে দেয়।

এ ঘটনার বিষয়ে আলমডাঙ্গা থানার ওসি তদন্ত আব্দুল আলিম জানান, ভাংবাড়িয়া জুয়া খেলা হচ্ছে এ সংবাদ পেয়ে হাটবোয়ালিয়া ক্যাম্প পুলিশ ঘটনাস্থলে অভিযান চালিয়ে দু’জনকে আটক করে। আরও দু’জন মাথাভাঙ্গা নদীতে ঝাপ দেয়। একজন নদী থেকে উঠলেও অন্য জনকে খুঁজে পাওয়া যায়নি। তাকে উদ্ধার করতে ডুবুরি দলকে সংবাদ দেওয়া হয়েছে। জুয়া খেলার সাথে দু’জনের সম্পৃক্ততা না থাকায় মেম্বার সুজনেন জিম্মায় তাদের ছেড়ে দেওয়া হয়।

 

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *