আইলহাস প্রতিনিধি:গতকাল মঙ্গলবার ১৫ নং আইলহাস ইউনিয়নের খাসবাগুন্দা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে অত্র এলাকার যুব সমাজের আয়োজনে জনসচেতনতামূলক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

 গতকাল মঙ্গলবার ১৫ নং আইলহাস ইউনিয়নের ৮নং ওয়াডে'র মেম্বার তারাচাদ মিয়ার সভাপতিত্বে  খাসবাগুন্দা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বিকাল তিনটায়  এলাকার যুবসম্প্রদায় আইলহাস ইউনিয়নকে একটি মডেল ইউনিয়ন হিসেবে গড়ে তোলার লক্ষে একটি বিশেষ আলোচনা সভার আয়োজন করে। আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন চুয়াডাঙ্গা জেলা আওয়ামীলীগ এর সাংগঠনিক সম্পাদক  চেয়ারম্যান এ্যাড.আব্দুল মালেক, বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ঘোলদাড়ী পুলিশ ফাড়ীর ইনচার্জ আব্দুল গাফফার, চুয়াডাঙ্গা পৌর ডিগ্রি কলেজের প্রভাষক হাসিবুল ইসলাম, পরিবার পরিবার পরিকল্পনা পরিদর্শক হুমায়ুন কবির,হাতেম আলী, কৃষক লীগের ইউপি সভাপতি,তাজ্জব আলী, ইউপি সদস্য বেল্টু রহমান, সুজন মিয়া ও ওল্টু রহমান।     পবিত্র কুরআন থেকে তেলওয়াত করে স্বাধীন মিয়া, উদ্বোধনী ভাষনে উদীয়মান তরুণ রক্সি বলেন আমরা যদি আমাদের ইউনিয়ন কে একটি মডেল ইউনিয়ন হিসেবে গড়ে তুলতে চাই তাহলে আমাদের মত যবসমাজকে একযোগে কাজ করতে হবে। যেখানে অন্যায় সেখানেই প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে, তাহলে অন্যায় মাথা চাড়া দিয়ে উঠতে পারবে না। চুয়াডাঙ্গা সরকারি কলেজের ছাত্রী খাসবা গুন্দার মেয়ে স্মৃতি  সুলতানা বলেন বাল্য বিবাহ প্রতিরোধ করতে হবে, এধরণের বিয়ের অনুষ্ঠানে কোনোভাবেই কেউ সহযোগিতা করবেন না, এমনকি এদের দাওয়াতও খাওয়া যাবে না। ঝিনাইদহ কৃষি কলেজের ছাত্রী নিখাত জাহান অভিযোগ তুলে  বলেন  যে, বাল্যবিয়ে বন্ধের জন্য ফোন দিলেও দায়িত্ব প্রাপ্ত ব্যক্তিরা অনেক সময় ফোন ধরতে চান না, আর ধরলেও প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ  না।  জবাবে ঘোলদাড়ী পুলিশ ফাড়ীর ইনচার্জ আব্দুল গাফফার সাহেব একটি মোবাইল নম্বর দিয়ে বলেন এই নাম্বার ২৪ ঘন্টা খোলা থাকে, আপনারা যেকোনো  ধরনের অপরাধ মুলক কম' কান্ড প্রতিরোধ করার জন্য   এই নাম্বারে ফোন করে সহায়তা নিতে পারবেন। স্মার্ট ফোন ব্যবহার প্রসঙ্গে তিনি বলেন ছোট ছোট ছেলে মেয়েদের হাতে এই ফোন তুলে দেওয়া যাবে না, এতে করে তারা বিপথগামী হতে পারে।    তিনি আরও বলেন সন্তান লালন-পালনের ক্ষেত্রে পিতা-মাতাকে সঠিকভাবে দায়িত্ব পালন করতে হবে যাতেকরে তারা মানুষের মত মানুষ হয়ে গড়ে উঠতে পারে।   প্রভাষক হাসিবুল ইসলাম বলেন    কারো একার পক্ষে আদশ' ইউনিয়ন গড়ে তোলা সম্ভব নয়। যার যার অবস্থান থেকে যথাযথ দায়িত্ব পালন করে ইউনিয়নকে মডেল হিসেবে গড়ে তুলতে ভুমিকা রাখতে হবে। তিনি মাদকের বিরুদ্ধে তীব্র আন্দোলন গড়ে তোলার উপরে বিশেষভাবে জোরদেন। সাস্হ্য পরিদর্শক হুমায়ুন কবির মাদক ও বাল্যবিবাহের কুফল ও ক্ষতিকর দিক নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করেন।     প্রধান অতিথি হিসেবে চেয়ারম্যান এ্যাড.আব্দুল মালেক মাদক, সন্ত্রাস, ধষন', নারী ও শিশু নির্যাতন প্রতিরোধে কায'কর   ভুমিকা রাখতে ইউনিয়নবাসীকে বিশেষভাবে   অনুরোধ    করেন।      গ্রামের মানুষের   মধ্যে কিভাবে সচেতনতা বৃদ্ধি করা যায় তার বিভিন্ন দিক নিয়ে  তিনি তার দীর্ঘবক্তব্যে     বিস্তারিত  আলোচনা করেন। তিনি গ্রামের মেয়ে নিখাত জাহানের গঠনমূলক বক্তব্য শুনে তাকে ৫০০ টাকা উপহার দেন। গ্রামের উন্নয়নে  তিনি আথি'ক সাহাযের    প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করে গ্রামের সকল সমস্যা  সমাধানের আশ্বাস দেন। করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে তিনি তার পক্ষ থেকে উপস্থিত সকলের মধ্যে মাস্ক বিতরন করেন। অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন ৮ নং ওয়ার্ড যুবলীগ সভাপতি ফেলু মিয়া, সেক্রেটারি মজনুর রহমান, যুবলীগ নেতা বিপুল, মুকুল, আকালে, লাভলু, শুভ, তুষার, রুবেল, মুজাম, রকিবুল ও মহিলা মেম্বার সাগরী বেগমসহ   এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ। অনুষ্ঠানের সার্বিক  উপস্থাপনায় ছিলেন খাসকররা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের সিনিয়র শিক্ষক মোঃ আব্দুল হান্নান।